করোনা পরিস্থিতির জেরে সঠিক সময়ে হয়নি পুরসভার ভোট। কলকাতা সহ রাজ্যের বেশ কয়েকটি পুরসভার মেয়াদ ফুরিয়ে গিয়েছে। সেই সব পুরসভা গুলিতে প্রশাসক বসিয়ে কাজ চালাচ্ছে রাজ্য সরকার। এই অবস্থায় রাজ্য সরকারের ভূমিকা নিয়ে তীব্র আপত্তি তোলে বিরোধীরা। ওই মামলায় রাজ্যে পুরোভোট কবে সম্ভব? রাজ্যের কাছে জানতে চাইল সুপ্রিম কোর্ট।

আরও পড়ুন-পুলিশের গুলিতে মৃত্যুর তদন্তে সিআইডি, 'সর্বশ্রেষ্ঠ রসিকতা', সরকাকে নিশানা মুকুলের

মামলায় সুপ্রিম কোর্ট জানিয়েছে, রাজ্যের পুরসভা গুলিতে স্বাধীন প্রশাসক বসিয়ে কাজ করতে হবে। করোনা পরিস্থিতির কারণে যদি তাড়াতাড়ি ভোট করানো সম্ভব না হয়, তবে কবে ভোট করানো যেতে পারে তা জানাতে হবে রাজ্য সরকারকে। আগামী ১০ দিনের মধ্যে রাজ্যের কাছে জানতে চাইল সুপ্রিম কোর্ট।

আরও পড়ুন-ফের রাজ্যপালের ট্যুইট বোমা, মুখ্যসচিব ও ডিজিকে তলব করলেন জগদীপ ধনখড়

রাজ্য সরকারের এই ব্যবস্থা নিয়ে আপত্তি তুলেছে বিরোধী দলগুলি। বর্তমান সময়ে ভোট করানো সম্ভব হলেও রাজ্য সরকার তা করছে না বলে দাবি করেছে বিরোধীরা। গণতান্ত্রিক ব্যবস্থাকে এড়িয়ে শাসকদল ক্ষমতা কুক্ষিগত করার চেষ্টা করছে বলে অভিযোগ তাঁদের। পুরসভা গুলিতে রাজনীতিকদের বদলে কেন নিরপেক্ষ প্রশাসক নিয়োগ করা হল না। সেই প্রশ্ন তোলে বিরোধীরা। যদিও, রাজ্যের দাবি পুর আইন মেনেই মেয়াদ ফুরনো পুরসভায় প্রশাসক নিয়োগ করা হয়েছে। আদলতও সেখানে মান্যতা দিয়েছে। যদিও, রাজ্যের পুরভোট সংক্রান্ত বিষয় পুরোপুরি রাজ্য নির্বাচনের আওতাভুক্ত।