উত্তরবঙ্গ সহ  দক্ষিণবঙ্গেও জাঁকিয়ে শীত পড়তে চলেছে । কলকাতাও এবার সেই বহু প্রতীক্ষিত শীতের থেকে বাদ পড়বে না। ঝলমলে রোদে শীত উপভোগ করতে পারবে এবার শহর কলকাতার মানুষ। তবে শহরের তাপমাত্রা আরও ৩ ডিগ্রি কমার সম্ভাবনা রয়েছে, জানিয়েছে আবহাওয়া দফতর।উত্তুরে হাওয়ায় কোনো বাধা নেই। হু হু করে নামছে তাপমাত্রা। আগামী দুই দিনের তাপমাত্রা আরও বেশ কিছুটা নামার ইঙ্গিত। ২ ডিগ্রী পর্যন্ত তাপমাত্রা নামতে পারে কোথাও কোথাও।শীতল উত্তরের হওয়ায় শুধু রাতের ৯ ডিগ্রী তাপমাত্রা নেমে গেছে বেশ কিছু জায়গায়। কলকাতাসহ রাজ্যজুড়ে জাঁকিয়ে শীত এর পরিস্থিতি।

 

 

আরও পড়ুন, 'ভুল বুঝিয়ে রাজ্যে ছড়াচ্ছে হিংসা', মুর্শিদাবাদ ও মালদহে যাওয়ার ইচ্ছাপ্রকাশ রাজ্যপালের

কলকাতায় আজ পরিষ্কার আকাশ।রাতের তাপমাত্রা অর্থাৎ সর্বনিম্ন তাপমাত্রা স্বাভাবিকের থেকে তিন ডিগ্রি কম গতকাল সর্বোচ্চ তাপমাত্রা স্বাভাবিকের থেকে ৪ ডিগ্রি কম।আজ সকালে সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ১১.৭ ডিগ্রী সেলসিয়াস যা স্বাভাবিকের থেকে তিন ডিগ্রি কম।গতকাল সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ছিল ২২.৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস যা স্বাভাবিকের থেকে ৪ ডিগ্রি কম। আবহাওয়া দফতরের খবর অনুযায়ী, বৃহস্পতিবার শহরের সর্বোচ্চ তাপমাত্রা থাকতে পারে ২২ ডিগ্রি সেলসিয়াসের কাছাকাছি। শহরের সর্বনিম্ন তাপমাত্রার পারদ ছুঁতে পারে ১৩  ডিগ্রি সেলসিয়াস। শহরের বাতাসে আপেক্ষিক আর্দ্রতার পরিমাণ সর্বাধিক ৯৬  শতাংশ। আপেক্ষিক আর্দ্রতার পরিমাণ ন্যূনতম ৫৪ শতাংশ।  এই মুহূর্তে শহরের তাপমাত্রা  ১৪  ডিগ্রি সেলসিয়াস।

শহরে, শীত না আসার অন্য়তম কারণ হল পশ্চিমি ঝঞ্ঝা। তাই উত্তুরে হাওয়া আসতে পারেনি কলকাতায়। তার উপর প্রায়দিন প্রায় মেঘলা আকাশ থাকার দরুণ ঠান্ডা লাগছিল না । কিন্তু সেই পরিস্থিতি কাটতে চলেছে, এমনটাই জানিয়েছেন হাওয়া অফিসের কর্তারা। বুধবারের পর থেকে তীব্র হতে পারে শীতের দাপট। সপ্তাহের মাঝামাঝি থেকে পারদ নিম্মমুখী হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। সূত্রের খবর, মঙ্গলবার কলকাতায় তাপমাত্রা ছিস ১৮.৬ ডিগ্রি। বুধবার সেই তাপমাত্রা আরও কমে হল ১৫.৬ ডিগ্রি। আর আজ তা এক লাফে ১৩ ডিগ্রি সেলসিয়াসে।

আরও পড়ুন, বছর পড়লেই শুরু হবে কলকাতা বইমেলা, বইপ্রেমীদের মন ভরাবে এবার রাশিয়ান সাহিত্য়

শহরে ভালোভাবে শীত পড়ার জন্য সাধারণত ডিসেম্বর মাস পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হয় কলকাতাবাসীকে। উত্তরবঙ্গ-সহ দক্ষিণের জেলাগুলিতে তার আগে থেকেই শীত পড়ে গেলেও, কলকাতা তা থেকে বরাবর বাদ পড়ে যায়। তবে এবার সব কিছুরই ব্য়াতিক্রম ঘটেছে। ডিসেম্বরের মাঝামাঝি সময়েও স্বাভাবিকের থেকে দুই থেকে তিন ডিগ্রি বেশি ছিল শহরের তাপমাত্রা।