করোনা যুদ্ধে জয়ী হয়ে বাড়ি ফিরলেন মহেশতলার বিধায়ক দুলাল দাস। আজ মহেশতলা পৌরসভা এবং হাসপাতালের কর্মীরা তাঁকে ফুল দিয়ে সম্বর্ধনা জানিয়ে হাততালির মাধ্যমে বাড়ির উদ্দেশ্যে পাঠান। 

গত ৫ আগস্ট দুলালবাবু ওনার স্ত্রীর নামাঙ্কিত  হাসপাতাল কস্তুরী দাস মেমোরিয়াল সুপার স্পেশ্য়ালিটি হাসপাতালে ভর্তি হয়েছিলেন। সেই সময় তাঁর শরীরে জ্বর এবং শ্বাসকষ্ট ছিল। প্রথম টেস্টে তার কোভিড পজিটিভ ধরা পড়লেও দ্বিতীয় এবং তৃতীয় টেস্টে তার করোনা নেগেটিভ আসে। আজ তাকে হাসপাতাল থেকে ছেড়ে দেওয়া হয়। দুলাল বাবু বাড়িতে যাওয়ার সময়ে হাসপাতালের প্রতিটি স্টাফ এবং মহেশতলাবাসীকে ধন্যবাদ জানান।

দলে আরও খুশির খবর, এদিনই হাসপাতাল থেকে সুস্থ হয়ে বাড়ি রওনা হন রাজ্য়ের মন্ত্রী স্বপন দেবনাথ। আপাতত আরও সাত দিন তাঁকে হোম আইসোলেশেন থাকতে হবে। সম্প্রতি করোনা রিপোর্ট নেগেটিভ এসেছে সিপিআইএম-এর পলিটব্যুরো সদস্য় মহম্মদ সেলিমের। সোমবার মেডিকা হাসপাতাল থেকে ছেড়ে দেওয়া হয় তাঁকে। হাসপাতালের তরফে জানানো হয়েছে,এখন সুস্থ আছেন বর্ষীয়ান সিপিএম নেতা। চিকিৎসকরা তাঁর শারীরিক অবস্থা নিয়ে সন্তুষ্ট। তবে বাড়ি ফেরার পর তাঁকে সাত দিনের হোম আইসোলেশনে থাকতে বলা হয়েছে।

তবে বাংলার রাজনীতিতে করোনা আক্রান্ত হয়েছেন অনেক বিধায়ক- মন্ত্রী। সেই তালিকায় নাম ছিল তৃণমূলের মন্ত্রী সুজিত বসু,স্বপন দেবনাথ ছাড়াও তমোনাশ ঘোষের। এদের মধ্য়ে সুজিত বসু করোনা যুদ্ধে জয়ী হয়ে বাড়ি ফিরেছেন। তবে ফিরতে পারেননি তমোনাশ ঘোষ।