করোনা নিয়েও এবার রাজনৈতিক সংঘাত। প্রধানমন্ত্রীর সর্বদলীয় বৈঠকে অংশ নেবে না তৃণমূল কংগ্রেস। ইতিমধ্য়েই সেই বার্তা পৌঁছে দেওয়া হয়েছে প্রধানমন্ত্রীর অফিসে। প্রশ্ন উঠেছে, করোনা ভাইারাস মোকাবিলায় বিরোধীদের মতামত জানতে ভিডিয়ো কনফারেন্সে বৈঠক ডেকেছিলেন প্রধানমন্ত্রী। তাহলে কেন সেখানে যোগ দেবে না তৃণমূল কংগ্রেস। আগামী ৮ এপ্রিল হওয়ার  কথা ছিল এই বৈঠক। 

মোদীর ডাকে বাতি জ্বালাচ্ছেন কারা, নজর রাখছে তৃণমূল..

দেশজুড়ে ২১ দিনের লকডাউন। করোনা ভাইরাস রুখতে যার পর নাই চেষ্টা করে চলেছে রাজ্য়গুলি। সেখানে দাঁড়িয়ে সংসদের সব দলের সঙ্গে করোনা মোকাবিলায় মতামত নিতে  চাইছেন প্রধানমন্ত্রী। ইতিমধ্য়েই তৃণমূলের সাংসদ সুদীপ বন্দ্য়োপাধ্যায় ও ডেরেক ও'ব্রায়েন-এর কাছে সর্বদলের বার্তা পৌঁছে দিয়েছেন সংসদ বিষয়ক মন্ত্রী প্রহ্লাদ জোশি। সূত্রের খব, মাত্র পনেরো মনিটের ফোন কলেই নিজেদের কথাা জানিয়ে দিয়েছে তৃণমূলের সাংসদরা।

রাত ৯টা ১০ মিনিটেই কি ফিরবে আলো, রয়েছে অন্ধকারে কাটানোর আশঙ্কাও, জানুন বিস্তারিত...

জানা গিয়েছে, প্রহ্লাদ জোশিকে তৃণমূল জানিয়েছে,গত মার্চ মাসেই সোশ্যাল ডিস্ট্যান্সিং বজায় রাখতে সংসদের অধিবেশন বন্ধ করার কথা বলেছিলেন তৃণমূলের সাংসদরা। এমনকী অধিবেশন শেষ হওয়ার আগেই করোনা রুখতে সর্বদল বৈঠকের ডাক দিতে প্রধানমন্ত্রীর কাছে আবেদন জানিয়েছিল তৃণমূলের নেতারা। কিন্তু তাতে গুরুত্ব দেওয়া হয়নি। যে কারণে এখন আর সর্বদলে অংশ নিতে চায় না দল। 

প্রধানমন্ত্রীর সম্পর্কে কুরুচিকর পোস্ট, শীর্ষেন্দু মুখোপাধ্য়ায়ের মেয়ের নামে অভিযোগ বিজেপির...

সূত্রের খবর, করোনা রুখতে ক্রীড়াবিদ, ফিল্ম জগতের লোকজনের সঙ্গে প্রধানমন্ত্রীর বৈঠককে ভালোভাবে নেয়নি তৃণমূল। তাদের মতে, জনতার প্রতিনিধিদের সঙ্গে বৈঠক না করে তারকাদের সঙ্গে বৈঠক করা বেশি প্রয়োজন বলে ভেবেছেন প্রধানমন্ত্রী।