Asianet News BanglaAsianet News Bangla

SSKM হাসপাতালে ত্রিপুরায় আক্রান্ত তৃণমূল কর্মীর মৃত্যু, অভিযানের ডাক ঘাসফুল শিবিরের

কলকাতার হাসপাতালে ত্রিপুরায় আক্রান্ত তৃণমূল কর্মীর মৃত্যু। দীর্ঘ ৬ মাসের জীবন যুদ্ধের পর প্রাণ হারালেন ত্রিপুরার সক্রিয় কর্মী মুজিবর ইসলাম মজুমদার, এই ঘটনাকে কেন্দ্র করে গেরুয়া শিবিরের উপর অভিযোগ তোলে ঘাসফুল শিবির।  

 

Tripura TMC Leader died in Kolkata SSKM hospital RTB
Author
Kolkata, First Published Jan 5, 2022, 1:42 PM IST
  • Facebook
  • Twitter
  • Whatsapp

কলকাতার হাসপাতালে ত্রিপুরায় (Tripura) আক্রান্ত তৃণমূল কর্মীর মৃত্যু। দীর্ঘ ৬ মাসের জীবন যুদ্ধের পর প্রাণ হারালেন ত্রিপুরার সক্রিয় কর্মী মুজিবর ইসলাম মজুমদার। বুধবার সকাল ৬ টায় এসএসকেম হাসপাতালে মৃত্যু হয়েছে তাঁর। তৃণমূলের অভিযোগ, মুজিবর নামের ওই তৃণণমূল কর্মীকে বেধড়ক মারধর করেছিল বিজেপি (BJP)। অবস্থার অবনতি হওয়ার পেরই তাঁকে এসএসকেম-এ (SSKM) নিয়ে আসা হয়।  এরপরেই  এই ঘটনাকে কেন্দ্র করে গেরুয়া শিবিরের উপর অভিযোগ তোলে ঘাসফুল শিবির (TMC)।  

Tripura TMC Leader died in Kolkata SSKM hospital RTB

ত্রিপুরার সক্রিয় কর্মী ছিলেন মুজিবর ইসলাম মজুমদার। একুশ সালের ২৮ আগস্ট তৃণমূল ছাত্র পরিষদের প্রতিষ্ঠা বার্ষিকীতে মুজিবর ইসলাম মজুমদারের বাসভবনে একটি কর্মসূচির আয়োজন করা হয়। অভিযোগ ওঠে, ওই দিন বেশ কয়েকজন বিজেপি আশ্রিত দুষ্কৃতি হামলা চালায়। মুজিবরের উপর আচমকাই তাঁরা হামলা চালায়, বেধড়ক মারধর করে। লোহার রড দিয়ে মারা হয় এবং একটা হাতের হাড় ভেঙে গুড়ো করে দেওয়া হয়েছিল বলে অভিযোগ। এদিকে মুজিবরকে প্রাণে বাঁচাতে গিয়ে আক্রান্ত হন অন্যান্য তৃণমূল কর্মী সহ পরিবারের সদস্যরা। এরপর মুজিবর  ইসলাম মজুমদার এবং ছাত্রনেতা শুভঙ্কর মজুমদারের শারীরিক অবস্থা আশঙ্কাজনক হয়। তাঁদের এসএসকেম হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। শুভঙ্কর মজুমদার সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরে যান। কিন্তু মুজিবর ইসলাম মজুমদারের আঘাত এতটাই গুরুতর হয়, যে তাঁকে অস্ত্রোপচারের পরামর্শ দেন চিকিৎসকেরা। তবে রক্তে শর্করার পরিমাণ বেশি থাকায় প্রথমে ওই অস্ত্রপচার করা যায়নি। এরপর ১৮ ডিসেম্বর এসএসকেম এ তাঁকে ভর্তি করা হয়। পরে অস্ত্রোপচার করা হয়। কিন্তু শেষ রক্ষা হল না। দীর্ঘ ৬ মাসের জীবন যুদ্ধের পর বুধবার সকাল ৬ টায় এসএসকেম হাসপাতালে প্রাণ হারালেন ত্রিপুরার সক্রিয় কর্মী মুজিবর ইসলাম মজুমদার।

তৃণমূল সাংসদ শান্তনু সেন এই ঘটনার তীব্র নিন্দা করেছেন। ত্রিপুরাবাসী এই ঘটনার জবাব দেবে বলে দাবি জানিয়েছেন তিনি। যদিও  বিজেপি এই অভিযোগ অস্বীকার করেছে। বিজেপি নেত্রী অস্মিতা বণিক বলেছেন,  যেকোনও মৃত্যুই দুঃখজনক। তবে এই ঘটনায় বিজেপির কোনও যোগাযোগ নেই। তৃণমূল কর্মীর মৃত্যুর ঘটনায় যুক্ত পশ্চিমবঙ্গের শাসকদলের কর্মীরাই। এদিকে বুধবারই ত্রিপুরার রাজভবন অভিযানের ডাক দিয়েছে তৃণমূল। ত্রিপুরার সামগ্রিক আইন শৃৃঙ্খলা অবনতি, প্রতিনিয়ত মহিলা নির্যাতন, বিরোধী দলের কর্মীদের উপর আক্রমণ, কার্যালয় পুড়িয়ে দেওয়া সহ ১৫ দফা দাবিতে ত্রিপুরায় এদিন রাজভবন অভিযানের ডাক দিয়েছে ঘাসফুল শিবির।

Follow Us:
Download App:
  • android
  • ios