নাগরিকত্ব আইন নিয়ে সরগরম রাজ্য রাজনীতি। শিক্ষাগত যোগ্যতা নিয়ে প্রশ্নে মুখে মেজাজ হারালেন আসানসোলের বিজেপি সাংসদ ও কেন্দ্রীয় মন্ত্রী বাবুল সুপ্রিয়। এক মুসলিম যুবককে বাংলাদেশের পাঠানোর হুমকি জড়ালেন বিতর্কেও।

আরও পড়ুন: প্রাণ থাকতে ডিটেনশন ক্যাম্প নয়, কেন্দ্রকে চরম হুঁশিয়ারি মুখ্যমন্ত্রীর

স্রেফ রাজনীতির আঙ্গিনাতেই নয়, নাগরিকত্ব বিরোধী আন্দোলনের আঁচ পৌঁছে গিয়েছে শিক্ষাঙ্গনেও। দেশের একাধিক শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে বিতর্কিত এই আইনের বিরুদ্ধে প্রতিবাদে সোচ্চার ছাত্র-ছাত্রীরা। কলকাতায় পথে নেমেছেন যাদবপুর, প্রেসিডেন্সি-এর মতো নামী শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের পড়ুয়ারা। গত মঙ্গলবার যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাবর্তনে গিয়ে বিক্ষোভের মুখে পড়েন খোদ রাজ্যপাল তথা আচার্য জগদীপ ধনকড়ও। সমাবর্তন অনুষ্ঠানের মঞ্চেই সিএএ-র প্রতিলিপি ছিঁড়ে প্রতিবাদও জানান স্বর্ণপদক বিজয়ী ছাত্রী দেবস্মিতা চৌধুরী। 'কাগজ নহি দিখায়েঙ্গে', ইনকিলাব জিন্দাবাদও স্লোগানও দেন তিনি।  এ ঘটনায় সমালোচনা ঝড় ওঠেছে। সোশ্যাল মিডিয়ার দেবস্মিতার বাবা-মা-কে ছেড়ে কথা বলছেন না বিজেপি সমর্থকরা।  নিজের ফেসবুক ওয়ালে তেমনই একটি পোস্ট শেয়ার করেছিলেন বিজেপি সাংসদ ও কেন্দ্রীয় মন্ত্রী বাবুল সুপ্রিয়। 

সেই পোস্টে নিচে কমেন্ট করে খোদ সাংসদ বাবুল সুপ্রিয় ও বিজেপি-এর রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষের শিক্ষাগত যোগ্যতা নিয়ে প্রশ্ন তোলেন মুস্তাফিউর রহমান নামে এক যুবক। লেখেন, 'বাবুল দা, আপনি কতটা শিক্ষিত আর আপনার গুরু দিলীপ ঘোষ কত শিক্ষিত যে কিনা গুরু থেকে সোনা বের করে!'আর তাতেই মেজাজ হারান কেন্দ্রীয় মন্ত্রী বাবুল সুপ্রিয়।  বিজেপি সাংসদের প্রত্যুত্তর, 'আগে তোমায় তোমার দেশের ফেরত পাঠায়। তারপর পোস্টকার্ডে জবাব দেব।' বাবুলের বিতর্কিত মন্তব্যটি ভাইরাল হয়ে গিয়েছে সোশ্যাল মিডিয়ায়। স্ক্রিনশট নিয়ে মন্ত্রীকে তুলোধোনা করেছেন অনেকেই।