বর্ষা এসেছে নির্ধারিত সময়ের বহু পরে। শুধু তাই নয়, এসেই সে চলে গিয়েছে উত্তরে। দুই একবার নিম্নচাপের কারণে পরিস্থিতির বদল হলেও, চিত্রটা বদলায়নি সামগ্রিক দক্ষিণবঙ্গের। জেলায় জেলায় যত বেড়েছে ঘাটতি, ততই যেন সে আরও দূরে চলে গিয়েছে। আষাঢ় মাসের শেষ সপ্তাহ আসতে চলল, তবুও অবস্থার বদল হল না।

হাওয়া অফিস সাফ জানাচ্ছে, আগামী ৪৮ ঘন্টায় কলকাতা-সহ দক্ষিণবঙ্গে বৃষ্টির সম্ভাবনা কম। তবে  বৃষ্টি হতে পারে মুর্শিদাবাদ,বীরভূম, নদিয়াতে। মৎস্যজীবীদের আগামী ২৪ ঘন্টায় সমুদ্রে যেতে নিষেধ করা হয়েছে। সমুদ্রে উত্তাল ঢেউ  থাকার কারণে নবান্নের তরফেও এই সতর্কবার্তা জারি হয়েছে।

অন্য় খবর পড়ুনঃ 'ফিরহাদ হাকিম দাদার মতো', অনাস্থার খবরে গান্ধীগিরি সব্যসাচীর

দক্ষিণবঙ্গে যখন এই বৃষ্টির আকাল, উত্তরবঙ্গে সেই সময়েই ভারী বৃষ্টির পূর্বাভাস। উত্তরের সব জেলাতেই ভারী বৃষ্টি হবে আগামী ৯ জুলাই থেকে ১২ জুলাই। ওপরের পাঁচটি জেলায় অর্থাৎ দার্জিলিং, কালিম্পং, জলপাইগুড়ি, আলিপুরদুয়ার ও কোচবিহারে ভারী থেকে অতি ভারী এবং নীচের জেলাগুলি তথা মালদা ও দুই দিনাজপুরে ভারী বৃষ্টির সতর্কতা থাকছে।

এই বৃষ্টির কারণ হিসেবে আলিপুর আবহাওয়া দফতর জানাচ্ছেন, মূলত পূর্ব উত্তরপ্রদেশ ও সংলগ্ন বিহারের ওপর একটা সুস্পষ্ট নিম্নচাপ রয়েছে। আর নিম্নচাপ অক্ষরেখা বিহার এর নিম্নচাপ হয়ে বঙ্গোপসাগর পর্যন্ত রয়েছে। এর ফলে উত্তরবঙ্গেই বৃষ্টির অনুকূল আবহাওয়া তৈরি হয়েছে।

আবহবিদরা আরও জানিয়ে দিচ্ছেন, আগামী কয়েক দিন কলকাতা-সহ দক্ষিণবঙ্গে আর্দ্রতাজনিত অস্বস্থি বজায় থাকবে।