বৃহস্পতিবার শহর ও শহরতলির আকাশ দিনভোরই মেঘলা ছিল। কলকাতায় সকাল থেকেই শুরু হয়েছে বৃষ্টি। উত্তর বঙ্গোপসাগর উপরে পশ্চিমবঙ্গ ও বাংলাদেশে সংলগ্ন উপকূলের উপর একটি নিম্নচাপ তৈরি হয়েছে। তবে এই নিম্নচাপ আরও শক্তি বাড়াবে। এর ফলে দক্ষিণবঙ্গের প্রায় সর্বত্রই বৃষ্টি হবে। পাশাপাশি নিম্নচাপের জেরে পশ্চিমবঙ্গের পশ্চিমে জেলাগুলোতে  বৃষ্টি  হবে।  হাওয়া অফিস সূত্রে খবর,বৃহস্পতিবার  কলকাতায়  সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ২৫.৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস এবং এই মুহূর্তে সকাল ৮ টা ৬ মিনিটে শহরের তাপমাত্রা ২৭ ডিগ্রি সেলসিয়াস। 

 হাওয়া অফিস সূত্রে খবর, বৃহস্পতিবার কলকাতায়  সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ২৫.৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস। স্বাভাবিকের থেকে এক ডিগ্রি কম। এবং সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ২৯.৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস। স্বাভাবিকের থেকে দুই ডিগ্রি কম। বাতাসে আপেক্ষিক আর্দ্রতার পরিমাণ সর্বাধিক ৯৭ শতাংশ। আপেক্ষিক আর্দ্রতার পরিমাণ ন্যূনতম ৯২ শতাংশ। বুধবার কলকাতায়  সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ২৫.৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস। স্বাভাবিকের থেকে এক ডিগ্রি কম। এবং সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ২৯.৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস। স্বাভাবিকের থেকে দুই ডিগ্রি কম। বাতাসে আপেক্ষিক আর্দ্রতার পরিমাণ সর্বাধিক ৯৮ শতাংশ। আপেক্ষিক আর্দ্রতার পরিমাণ ন্যূনতম ৯০ শতাংশ। সোমবার কলকাতায়  সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ২৮.৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস। স্বাভাবিকের থেকে দুই ডিগ্রি বেশি। এবং সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ৩৪.৮ডিগ্রি সেলসিয়াস। স্বাভাবিকের থেকে তিন ডিগ্রি বেশি। বাতাসে আপেক্ষিক আর্দ্রতার পরিমাণ সর্বাধিক ৯৫ শতাংশ। আপেক্ষিক আর্দ্রতার পরিমাণ ন্যূনতম ৬৪ শতাংশ। রবিবার কলকাতায়  সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ২৮.৭ ডিগ্রি সেলসিয়াস। স্বাভাবিকের থেকে দুই ডিগ্রি বেশি। এবং সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ৩৪.৬ ডিগ্রি সেলসিয়াস। স্বাভাবিকের থেকে দুই ডিগ্রি বেশি। বাতাসে আপেক্ষিক আর্দ্রতার পরিমাণ সর্বাধিক ৯৩ শতাংশ। আপেক্ষিক আর্দ্রতার পরিমাণ ন্যূনতম ৬১ শতাংশ। 

অপরদিকে, উত্তর বঙ্গোপসাগর উপরে পশ্চিমবঙ্গ ও বাংলাদেশে সংলগ্ন উপকূল এর উপর একটি নিম্নচাপ তৈরি হয়েছে।  এই নিম্নচাপ আরও শক্তি বাড়াবে। এর ফলে দক্ষিণবঙ্গের প্রায় সর্বত্রই বৃষ্টি হবে। নিম্নচাপ ও ঘূর্ণাবর্তে জেরে ভারী বৃষ্টির সর্তকতা দক্ষিণবঙ্গে। দক্ষিণবঙ্গের আট জেলায় ভারী বৃষ্টিপাতের আশঙ্কা। ভারী বৃষ্টি হতে পারে কলকাতাতেও। মৎস্যজীবীদের সমুদ্রে যেতে নিষেধ করেছে আলিপুর আবহাওয়া দফতর। বৃহস্পতিবার উত্তরবঙ্গের দার্জিলিং, আলিপুরদুয়ার, কোচবিহার, কালিম্পং এবং জলপাইগুড়ি জেলায় দু-এক পশলা বৃষ্টির সম্ভাবনা রয়েছে। আপাতত অতি ভারী বৃষ্টির কোনও সম্ভাবনা নেই উত্তরবঙ্গে। ভারী বৃষ্টি হওয়ার সম্ভাবনা দক্ষিণবঙ্গের দুই ২৪ পরগনা, দুই মেদিনীপুর হাওড়া, হুগলি,ঝারগ্রাম, পূর্ব বর্ধমান ও বাদবাকি জেলাগুলোতে হালকা বৃষ্টি বৃষ্টি হবে। মূলত পুরুলিয়া,বাঁকুড়া, পশ্চিম বর্ধমান, ঝারগ্রাম, পশ্চিম মেদিনীপুরে ভারী বৃষ্টির সম্ভাবনা আছে। এই নিম্নচাপ যেহেতু সমুদ্রের উপর রয়েছে তার জন্য মৎস্যজীবীদের সমুদ্রে যেতে নিষেধ করা হয়েছে। তবে ৬ তারিখ থেকে বৃষ্টি ধীরে ধীরে কমে যাবে।