বাংলার চিন্তা বাড়াচ্ছে দিল্লির ধর্মীয় সমাবেশ। গতকালই দিল্লির নিজামুদ্দিনে অংশগ্রহণকারী ৫৪ জনকে চিহ্নিত করেছিল রাজ্য় সরকার। নিউ টাউনের হজহাউসে রাখা হয়েছিল তাঁদের। এবার সেই ব্যক্তিদের সংস্পর্শে আসা ৭৬ জনকে নতুন করে আনা হল হজ হাউসে। পরিসংখ্যান বলেছে,ওই সভা থেকে আসা ব্য়ক্তিদের সংস্পর্শে এসেছেন এরকম মোট ২১৫ জনকে চিহ্নিত করা হয়েছে। তাদের সবার ওপরই নজর রাখছে রাজ্য় সরকার।

করোনার জেরে এখনই মিলবে গরমের ছুটি, বিকল্প শিক্ষাবর্ষের ভাবনায় রাজ্য়ের একাধিক স্কুল.

গতকালই বুধবার নবান্নে সাংবাদিক বৈঠকে মুখ্য়মন্ত্রী জানিয়েছেন,রাজ্য় থেকে ৭১ জন নিজামউদ্দিন মসজিদের সমাবেশে অংশ নিয়েছিলেন।  সেইসঙ্গে তিনি জানিয়েছেন, ৭১ জনের মধ্যে ৫৪ জনকে ইতিমধ্যেই কোয়ারান্টাইনে পাঠানো হয়েছে। যাদের মধ্য়ে ৪০ জনই বিদেশি। এ বিষয়ে কেন্দ্রের ওপর ক্ষুব্ধ হয়েছেন মুখ্য়মন্ত্রী। তাঁর অভিযোগ, এই বিষয়ে রাজ্য়ের কাছে কেন্দ্র আরও আগে বার্তা পাঠাতে পারত। 

ফের করোনা আক্রান্তের শেষকৃত্যে তুলকালাম, ধাপার শ্মাশানে বিক্ষোভ স্থানীয়দের.

জানা গিয়েছে, নিজামউদ্দিনের সভা থেকে ফিরে তেলেঙ্গানার ৬ বাসিন্দা করোনায় মারা গিয়েছেন। রাজ্য সরকারের অনুমান, পশ্চিমবঙ্গ থেকে কমপক্ষে একশোজন গিয়েছিলেন দিল্লির ধর্মীয় সভায়। এখন দিল্লি ফেরত সেই মানুষদেরই খুঁজে বেড়াচ্ছে রাজ্য় সরকার। ইতিমধ্যেই রাজ্য় থেকে ওই ধর্মীয় সভায় যাওয়া ব্যক্তিদের খুঁজে বের করার কাজ শুরু করেছে স্বাস্থ্য় দফতর। এ বিষয়ে মুখ খুলেছেন খোদ রাজ্যের স্বরাষ্ট্র সচিব আলাপন বন্দ্যোপাধ্যায় টুইট করে জানিয়েছেন, রাজ্য থেকে দিল্লির ধর্মীয় সভায় যাওয়া ব্যক্তিদের চিহ্নিত করার কাজ শুরু হয়েছে। তাঁদের সবাইকে করোনা পরীক্ষার মুখোমুখি হতে হবে। পাশাপাশি ১৪ দিনের কোয়রান্টিন বাধ্য়তামূলক। 

পরীক্ষা না দিয়েই পাশ, পড়ুয়াদের পরের শ্রেণিতে তুলে দেওয়ার নির্দেশ সিবিএসই-র

জানা গিয়েছে,কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রকের বার্তা পেয়েই নড়েচড়ে বসেছে রাজ্য় সরকার। ইতিমধ্য়েই বিভিন্ন রাজ্য়ের কাছে একটি তালিকা দিল্লির ধর্মীয় সভায় যোগদানকারীদের একটি তালিকা পাঠানো হয়েছে। সূত্রের মতে, কেরল, তামিলনাড়ু, তেলঙ্গানার মতো রাজ্যের পাশাপাশি পশ্চিমবঙ্গ ও অসম থেকেও প্রচুর মানুষ জড় হয়েছিলেন তবলিগ জামাতে। 

মঙ্গলবার দিল্লি ও অন্ধ্রপ্রদেশ থেকে আরও ৩৫ জনের রিপোর্ট পজিটিভ এসেছে। এই সম্মেলনের জেরেই দেশে করোনাভাইরাস সংক্রমণ ভয়াবহ আকার নিতে পারে বলে মনে করছে কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রক। জানা গিয়েছে, ওই জমায়েত থেকে তেলেঙ্গানায় ফেরা ছ’জনের মৃত্যু হয়েছে। জম্মু-কাশ্মীরে মৃত্যু হয়েছে আরও এক জনের। আন্দামান নিকোবরে ফিরে যাওয়া ১০ জনের করোনা সংক্রমণ নিশ্চিত হয়েছে।

নতুন পাওয়া তথ্য় অনুযায়ী, নিজামুদ্দিনে অংশ নেওয়া ৪০ জনের মধ্যে ৩০ জনকে এখনই চিহ্নিত করেছে রাজ্য সরকার। আসানসোলের তিনটি মসজিদ থেকে ১১জন ইন্দোনেশিয়ার নাগরিক ও ১৯ জন বাংলাদেশের নাগরিকের হদিশ পেয়েছে রাজ্য। তাদের নিয়ে আসা হয়েছে হজ হাউসে। দিল্লির নিজামুদ্দিনে অংশ নিয়েছিল মোট ২ হাজার ৪১ জন। এরমধ্যে ৯৬০ জন বিদেশিকে চিহ্নিত করেছে বিদেশমন্ত্রক। এদের প্রত্যেককে কালো তালিকাভুক্ত করা হয়েছে। ৮২৫জনকে ভারতে এখনও পর্যন্ত চিহ্নিত করা হয়েছে।৪৯১ জন বাংলাদেশি নাগরিক ছিল, ৯ জন চিনা নাগরিক ছিল। এই ৯জন চিনা নাগরিক থেকেই ভাইরাসের সংক্রমণ বলে ধারণা।