'গুজরাতিতে যদি হতে পারে, তাহলে জয়েন্ট এন্ট্রান্স পরীক্ষায় বাংলাতে প্রশ্ন থাকবে না কেন?' টুইটারে সরব মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।  টুইটারে তিনি লিখেছেন,  'গুজরাতি ভাষাকে আমি ভালোবাসি। কিন্তু অন্য আঞ্চলিক ভাষাগুলিকে কেন অবহেলা করা হবে? অন্য আঞ্চলিক ভাষা যাঁরা কথা বলেন, তাঁদের প্রতি কেন অন্যায় করা হবে? বাংলা-সহ অন্য সমস্ত আঞ্চলিক ভাষাতেও জয়েন্টের প্রশ্নপত্র হওয়া উচিত।'

মোদী জমানার দেশের সমস্ত স্কুলের হিন্দি বাধ্যতামূলক করার প্রস্তাব নিয়ে বিতর্ক কম হয়নি।  দেশের নয়া শিক্ষানীতি নিয়ে কেন্দ্রীয় মানবসম্পদ উন্নয়ন মন্ত্রকে একটি খসড়া রিপোর্ট জমা দিয়েছিল নয় সদস্যের এক কমিটি। সেই খসড়া রিপোর্টে দেশের সমস্ত স্কুলে অষ্টম শ্রেণির পর্যন্ত হিন্দি বাধ্যতামূলক করার প্রস্তাব দেওয়া হয়। আর তাতেই রাজনৈতিক মহলের বিতর্কের ঝড় ওঠে। অভিযোগ ওঠে, মোদী সরকার জোর হিন্দি চাপিয়ে দেওয়ার চেষ্টা করছে। কারণ, তামিলনাড়ু, কর্ণাটক, তেলেঙ্গানা, বাংলা,আসাম-সহ বহু রাজ্যে স্কুলগুলিতে হিন্দি বাধ্যতামূলক নয়। আর এবার নজরে জয়েন্ট এন্ট্রান্সের প্রশ্নপত্র।

ঘটনা ঠিক কী?  দেশের রাজ্যে স্কুলগুলিতে আঞ্চলিক বা স্থানীয় ভাষা পড়াশোনা করতে পারে পড়ুয়ারা।  কিন্তু জয়েন্টের মতো সর্বভারতীর পরীক্ষা প্রশ্নপত্রে কিন্তু আঞ্চলিক ভাষার কোনও স্থান নেই। হয় ইংরেজি কিংবা হিন্দিতে পরীক্ষা দিতে হয় পড়ুয়াদের।  সম্প্রতি কেন্দ্রীয় সরকার নির্দেশিকা জারি করে জানিয়েছেন, ২০২০ সালে অর্থাৎ আগামী বছর জয়েন্ট এন্ট্রান্স পরীক্ষায় গুজরাতি ভাষাতেও প্রশ্নপত্র থাকবে। সোজা কথায়, গুজরাতের ছাত্রছাত্রীরা নিজেদের মাতৃভাষাতে জয়েন্ট এন্ট্রান্স পরীক্ষা দিতে পারবেন। আর তাতেই বিতর্ক দানা বেঁধেছে। মোদী সরকারের বিরুদ্ধে অন্যন্য আঞ্চলিক ভাষা প্রতি বৈষম্যমূলক আচরণের অভিযোগ তুলেছে বিরোধীরা।