ফের অফিসটাইমে মেট্রোয় আত্মহত্যার চেষ্টা। এবার ময়দান স্টেশনে নিউগড়িয়াগামী ট্রেনে সামনে ঝাঁপ দিলেন এক মহিলা। প্রাণে বেঁচে গিয়েছেন তিনি। ওই তরুণী এসএসকেএম হাসপাতালে ভর্তি বলে জানা গিয়েছে। এদিকে এই ঘটনায় মঙ্গলবার সকালে প্রায় আধঘণ্টা ব্যাহত মেট্রো পরিষেবা। নাকাল হতে হয় যাত্রীদের।

আরও পড়ুন: শুধু সামনে নয়, হাওড়া- দিল্লি রাজধানীর পিছনেও এবার থাকবে ইঞ্জিন

ঘড়িতে তখন সকালে ১০টা ৪২মিনিট।  শহরের পাতালপথে প্রতিটি মেট্রো স্টেশনে তখন অফিসযাত্রীদের ভিড়। প্রত্যক্ষদর্শীরা জানিয়েছেন, ময়দান স্টেশনে তখন সবে ঢুকছে নিউ গড়িয়াগামী একটি মেট্রো। আচমকাই প্ল্যাটফর্ম থেকে চলন্ত ট্রেনের সামনে ঝাঁপ দেন এক তরুণী! বরাতজোরে প্রাণে বেঁচে যান তিনি। তড়িঘড়ি পরিষেবা বন্ধ করে ওই তরুণীকে উদ্ধারের কাজে নেমে পড়েন মেট্রো আধিকারিকরা।  উদ্ধারের পর তাঁকে নিয়ে যাওয়া হয় এসএসকেএম হাসপাতালে। এদিকের এই ঘটনার জেরে সকালে দীর্ঘক্ষণ চাঁদনি চক থেকে টালিগঞ্জ পর্যন্ত মেট্রো চলাচল বন্ধ ছিল। তবে দমদম থেকে সেন্ট্রাল থেকে দমদম ও টালিগঞ্জ থেকে নিউ গড়িয়া পর্যন্ত পরিষেবা স্বাভাবিক ছিল।  আধ ঘণ্টার পর পরিস্থিতি স্বাভাবিক। চূড়ান্ত দুর্ভোগে পড়েন যাত্রীরা।

যতদিন যাচ্ছে, মেট্রোয় আত্মহত্যার প্রবণতাও ততই বাড়ছে।  আত্মহত্যা রুখতে মেট্রো কর্তৃপক্ষের উদ্যোগের কিন্তু অভাব নেই।  এমনকী, নির্মীয়মাণ ইস্ট-ওয়েস্ট মেট্রোর প্রতিটি স্টেশনে প্ল্যাটফর্মে শেষে বিশেষ ধরণের দরজা বা স্ক্রিনডোরও লাগানো হয়েছে। কিন্তু তাতেও কী আদৌও কোনও লাভ হচ্ছে? প্রশ্ন উঠেছে।