বর্তমানে ফ্যাশনের শীর্ষে রয়েছে এই ট্যাটু কালচার। অনেকেই নিজেদের পছন্দ মত আঁকা শরীরের বিভিন্ন জায়গায় ট্যাটু করান। হাতে, কাঁধে, কোমড়ে তবে চোখে ট্যাটু! ট্যাটুর নেশার মেতে উঠেছিলেন পোল্যান্ডের রোকলার বাসিন্দা আলেক্সান্দ্রা স্যাডোওস্কা। পেশায় তিনি একজন ফ্যাশন মডেল। ফ্যাশন দুনিয়ায় বেশ পরিচিত মুখ আলেক্সান্দ্রার। ট্যাটুর নেশায় মত্ত হয়ে তিনি চোখের সাদা অংশে ট্যাটু করান। চোখ অত্যন্ত সংবেদনশীল, চোখের সাদা অংশে সূঁচ ফুটিয়ে ট্যাটু করানোর ফল হাতনাতে পেলেন এই সুপার মডেল।

আরও পড়ুন- ৪ প্রতিবেশী দেশের ১৩টি অঞ্চলে তীব্র জলসঙ্কট, তালিকায় রয়েছে দেশের ৫ জায়গাও

আরও পড়ুন- সন্তানদের রক্ষা করতে বিষাক্ত সাপের সঙ্গে লড়াই, মায়ের মমতায় ভাসলো সোশ্যাল মিডিয়া

র‌্যাপার পোপেকের মতো লুক পেতে এই মডেল চোখের সাদা অংশটি কালো রঙ দিয়ে ট্যাটু করাতে চান। সেই মত পিয়োটার নামে স্থানীয় এক ট্যাটু শিল্পীর সঙ্গে যোগাযোগ করেন তিনি। আইবল ট্যাটুকে স্ক্লেরাল ট্যাটু বলা হয় অনেক জায়গায়। আলেক্সান্দ্রার ইচ্ছে মত ওই ট্যাটুশিল্পী তাঁর চোখের সাদা অংশে ট্যাটুও করে দেন। এর পর থেকেই মারাত্মক যন্ত্রণা শুরু হয় ২৫ বছর বয়সী মডেলের চোখে। পিয়োটার তাঁকে পরামর্শ দেন এই যন্ত্রণা স্বাভাবিক পেইন কিলার খেলেই এই ব্যথা কমে যাবে। ব্যাথা ক্রমশ বৃদ্ধি পেলে ট্যাটু শিল্পীর বিরুদ্ধে অভিযোগ করেন মডেল আলেক্সান্দ্রা।

 

 

শেষমেশ চিকিৎসকের দ্বারস্থ হতে হয় এই সুপার মডেল কে। চিকিত্সকদের মতে, ট্যাটুর রঞ্জকটি আলেক্সান্দ্রার চোখের টিস্যুতে পৌঁছে গিয়েছে ফলে দৃষ্টি ফিরে পাওয়ার আর কোনও আশা নেই। পুলিশি তদন্তে জানা গিয়েছে, চোখে ট্যাটু করার জন্য শিল্পী যে রংটি ব্যবহার করেছেন তা চোখের জন্য মারাত্মক ক্ষতিকর। স্থানীয় সংবাদমাধ্যেম আলেক্সান্দ্রা জানিয়েছেন, "আশঙ্কা করছি আমি আমার দৃষ্টিশক্তি চিরদিনের মত হারিয়ে ফেলবো কারণ চিকিৎসকরা আমারা দৃষ্টি ফিরে পাওয়ার বিষয়ে খুব একটা আশাবাদী নন।"