ভিটামিন ও মিনারেলের জন্য রোজ সবজি খেতে বলেন পুষ্টিবিদরা। রোজ ডায়েটে যদি সামান্য পরিমাণে সবজি রাখেন, তা হলে তার উপকার পাওয়া যাবেই। কিন্তু ঠিক ভাবে সবজি রান্না না করা গেলে তার কোনও উপকারই কাজে আসে না। সবজি বাজার থেকে কিনে এনে কী ভাবে রাখা হয় এবং রান্না করা হয়, তার উপরই নির্ভর করে সবজি থেকে কতটা উপকার পাবেন। সবজির সমস্ত পুষ্টি ভোগ করতে সবজকে ঠিক ভাবে রাখা, ঠিক করে কাটা, রান্না করা প্রতিটি বিষয়েই নজর দিতে হবে। পাঁচটি পদ্ধতি প্রয়োগ করে যদি আপনি রান্না করেন, তা হলেই সেই সবজির সমস্ত পুষ্টিগুণ পাবেন আপনি। 

জেনে নেওয়া যাক, কোন পদ্ধতিতে রান্না করলে সবজির সমস্ত পুষ্টিগুণ পাবেন আপনি- 

১) সবজি কাটার আগে অবশ্যই আগে ভালো করে সেগুলিকে ধুয়ে নিন। কখনওই সবজি কাটার পরে ধোবেন না। এতে সবজির সমস্ত পুষ্টিগুণ চলে যায়। অনেকে সবজি কেটে তাকে ফ্রিজে রেখে দেয়। এটি মোটেই স্বাস্থ্যকর অভ্যেস নয়। সবজি কেটে বেশিক্ষণ রেখে দেবেন না। রান্নার আগে সবজি কাটুন। 

২) সবজি কেমন মাপের কাটবেন, তার উপেরও নির্ভর করে তার পুষ্টিগুণ কতটা থাকবে। পুষ্টিবিদরা সবজি খুব ছোট পিস করে কাটতে না করছেন। এতে সবজির প্রতিটি অংশ সরাসরি তেল ও মশলার সরাসরি সংস্পর্শে চলে আসে। তাই বড় পিস করে কাটার রপরামর্শ দিচ্ছেন তাঁরা। 

আরও পড়ুনঃ কাঁচালঙ্কা রোজ একটি করে! উপকার জানলে আজ থেকেই খাবেন

৩) রান্নায় সময়ও একটা বড়া বিষয়। কতক্ষণ  ধরে রান্না করবেন এবং কতটা হিট-এ রান্না করবেন সেদিকে নজর দিন। বেশিক্ষণ ধরে অতিরিক্ত গরম আঁচে রান্না করলে হীতে বিপরীত হয়। এতে সমস্ত পুষ্টিগুণই চলে যায়। অল্প সময় ধরে রান্না করুন। এতে সবজির ভিটামিন, মিনারেল অক্ষত থাকবে। 

৪) সবজি রান্নায় কতটা জল দেবেন, তার উপরেও নির্ভর করে সবজিতে কতটা পুষ্টি থাকবে। যতটা সম্ভব কম পরিমাণে জল দিন। বেশি জল দিলে সমস্ত পুষ্টি গলে যাওয়ার সম্ভাবনা থাকে। অল্প জলে হালকা আঁচে রান্না করুন সবজি। রান্না করার সময়ে পাত্রটি যেন ঢাকা থাকে। 

৫) অনেকেই রান্না করার পরে সেগুলি দ্বিতীয় বার গরমকরে খান। এই অভ্যেস মোটেই স্বাস্যকর নয়। দু বার সবজি গরম করলে তার থেকে সমস্ত পুষ্টিই নষ্ট হয়ে যায়। তাই রান্না করুন অল্প পরিমাণে। টাটকা রান্না করা সবজি খান।