বাইরে কালো মেঘ সঙ্গে বৃষ্টি। স্কুল কলেজের পাঠ নেই। অফিস বিমুখও অনেকেই। বাড়িতে তড়িঘড়ি বসে গেল খিচুরি। সঙ্গে ইলিশমাছ। কিংবা গরম ভাতে ইলিশের তেল, ভাপা ইলিশ, সর্ষে ইলিশ...। এভাই চলে থাকলে ফ্যাট বাড়বে রাতারাতি, তাই বর্ষায় চায়ের কাপে চুমুক দিতে হাত থেকে চপটি সরিয়ে রাখতে ভুলবেন না কিন্তু। দেরি ঢুকেছে বর্ষা। মাথায় রাখতে হবে পুজোর আর মাত্র দুই মাস বাকি। তারই মধ্যে যদি পাত পেরে চলে ভুরিভোজ তবে পুজোর ফ্যাশনে নজর কাড়তে রীতিমতন বেগ পেতে হবে। তাই একটু অন্যস্বাদেই কাটিয়ে ফেলুন বর্ষা।

আরও পড়ুনঃ মটন ভালোবাসেন! তবে চেখে দেখুন পেশোয়ার-ই-গোস্ত
১) বিকেলবেলা ভুট্টা খেতে পারে। ভুট্টা স্বাস্থ্যকর খাদ্য। বর্ষা ভুট্টার সিজিনও। এই সময় বিকেলে কাছে পিঠে কোথাও ভুট্টা পাওয়া গেলে তা দিয়ে বিকেলটা জমিয়ে ফেলুন।
২) বৃষ্টি মানেই খিচুরি। তবে তা চলতে পারে, মাথায় রাখতে হবে তা যেন তৈরি হয় ডালিয়া দিয়ে। ডালিয়া ডায়েটের জন্য ভিষণই উপাদেয়।
৩) দুপুরে বেশ মশলা দিয়ে মেখে ফেলুন মরশুমি ফল। এই সময় কালোজাম, পেয়ারা খুব ভালো পাওয়া যায়। তাই মুখোরচোক করে মেখে নিন। দুপুরটা কাটবে ভালোই।
৪) বিকেলে খানিকটা মশলা কিংবা আদা দিয়ে চা পান করা যেতেই পারে। তবে সঙ্গে রাখা চপটি বাতিল করতে হবে। তার বদলে খেতে পারে সেঁকা পাঁপর। 
৫) প্রতিদিন বৃষ্টিতেই যে পাতে ইলিশ রাখতে হবে এমনটা নয়, সঙ্গে রাখুন ছোট মাছ, কিংবা ঘরোয়া কন্টিনেন্টাল খেতেই পারে।