আর মাত্র কয়েকদিন। ঘরের দোরগোড়ায় চলে এসেছে শীত। রাতের বেলা হালকা ঠান্ডা আর সকালের হাওয়া  জানান দিচ্ছে শীত আর খুব দূরে নেই। ধীরে ধীরে শীতের প্রয়োজনীয় জিনিসগুলিও একে একে বের করতে হবে আলমারির থেকে। এ সব তো নয় ঠিক আছে। কিন্তু ঠান্ডার সময় স্নানের কথা চিন্তা করলেই যেন গায়ে জ্বর চলে আসে অনেকের। শীতকালে গরম  জল ছাড়া স্নান এটা যেন অনেকেই ভাবতে পারেন না। কিন্তু সময়সময় গ্যাসে গরম জল করার সময়ও থাকে না। আর বিশেষ করে তাড়াহুড়ো করে বেরানোর সময় তো একদমই হয়ে ওঠে না এইসব করা। আর তখনই ঠান্ডা জলেই স্নান করে বেরাতো হয়। কিন্তু দিনের পর দিন এই ঠান্ডা জলে স্নান করলে শুরু হয় নানান অসুখ।  আর এই সমস্ত সমস্যার একটাই মুশকিল আসান হল গিজার অথবা ইলেকট্রিক হিটার।  এর সাহায্যে খুব সহজেই জল গরম করে নেওয়া যায়।

আরও পড়ুন-বিয়ের আগে যৌন সম্পর্কে বিশ্বাসী নয় কত সংখ্যক মানুষ, সমীক্ষায় উঠে এল চাঞ্চল্যকর তথ্য...

বিভিন্ন ধরনের নানা ডিজাইনের এবং বিভিন্ন দামের গিজার সারা মার্কেটে ছেয়ে গেছে। সাধারণত লিটার হিসেবেই এর দাম নির্ধারণ করা হয়। আপনি আপনার পছন্দ মতো অনায়াসেই বেছে নিতে পারেন এই গিজার বা হিটার। গিজার যেহেতু একটি ইলেকট্রিক জিনিস তাই কেনার সময়  অবশ্যই দেখে শুনে তারপর কিনুন। শুধু শীতকালেই নয়, প্রায় সারাবছরই গরম জল আমাদের বিভিন্ন কাজে লাগে। বাড়িতে ছোট বাচ্চা থাকলে তার স্নানের জল,  আবার হঠাৎ কোনও জায়গায় ব্যথা পেলেও চটজলদি করে নেওয়া যায় গরম জল। তবে গিজার ব্যবহার করলেই  হল না, এর জন্য প্রয়োজন সঠিক রক্ষণাবেক্ষণের। তাহলে জেনে নিন কীভাবে করবেন গিজারের রক্ষণাবেক্ষণ।

আরও পড়ুন- ত্বককে উজ্জ্বল ও সতেজ রাখতে দুধ কতটা উপকারী, জানুন এক ক্লিকেই...

নতুন গিজার লাগানোর সময় সবার আগে বৈদ্যুতিক সংযোগ হয়েছে কিনা সেটা দেখে নিন। এর পাশাপশি পাইপের কানেকশনও ঠিক লাগানো হয়েছ কিনা সেটাও দেখে নেবেন। আয়রনের পাইপ হলে সেটা অনেক বেশি ভাল হয়।

গিজার নিজের মতোই চলে। বিদ্যুৎ সংযোগ পাওয়ার পর জল গরম হয়ে গেলে তা একা একাই বন্ধ হয়ে যায়। আপনার গিজারটি সেইমতো কাজ করছে কিনা সেদিকেও খেয়াল রাখুন। 

গিজারে একটি নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে জল গরম হয়। সেদিকেও নজর রাখুন। সেইমতো কাজ না করলে মিস্ত্রী ডেকে সারিয়ে নিন।

জল গরম হয়ে যাওয়ার পর গিজারটি বন্ধ রাখুন। এতে যেমন বিদ্যুৎ সাশ্রয় হবে। তেমন দীর্ঘদিন ভাল থাকবে এই গিজার।

গিজারে কোনও সমস্যা দেখলে তা ঠিক করার ব্যবস্থা করুন। নাহলে যে কোনও সময় বড় বিপদ ঘটতে পারে।

জল গরম হয়ে গেল গিজার থেকে পুরো জলটা বের করে নিন। জল ভেতরে জমে থাকলে গিজারে আয়রন জমে গিয়ে তা খুব তাড়াতাড়ি খারাপ হয়ে যাওয়ার ভয় থাকে।