গোটা বিশ্বের কাছে বর্তমানে আতঙ্ক হয়ে দাঁড়িয়েছে এই মারণ রোগ। প্রতি মুহূর্তে সারা বিশ্বে এই রোগের আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে চলেছে। ইতিমধ্যেই এই রোগকে মহামারি বলে চিহ্নিত করেছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা। চিনে এই রোগের উৎপত্তি হলেও ধীরে ধীরে সারা বিশ্বে ছড়িয়ে পরেছে এই মারণ রোগ। করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা সারা বিশ্ব জুড়ে প্রায় ৯৬,৪৮১ তে পৌঁছেগিয়েছে। চিনের বাইরেও ইতালিতে এই ভাইরাস মারণ থাবা বসিয়েছে। পরিস্থিতি সামাল দিতে যে কোনও ধরণের সমাবেশ নিষিদ্ধ করা করেছে সে দেশের সরকার।

আরও পড়ুন- করোনা ভাইরাস আতঙ্ক, মাস্কের কালোবাজারি রুখতে কড়া পদক্ষেপ পুলিশের

আরও পড়ুন- করোনা ভাইরাসের আতঙ্ক, বিশ্বের বৃহত্তম অংশে কাজ চলছে ওয়ার্ক ফ্রম হোম পদ্ধতিতে

একটু একটু করে ক্রমশ চিন্তা বাড়াচ্ছে নোবেল করোনা ভাইরাস। চিন থেকে করোনা আতঙ্ক এখন পৌঁছেছে ভারতেও। নয়া দিল্লি, কেরল-সহ দেশের বিভিন্ন জায়গায় এ পর্যন্ত করোনা ভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা ৩১ ছাড়িয়েছে। তাই এক গুচ্ছ সতর্কতামূলক ব্যবস্থা নিয়েছে কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রকও। করমর্দনের পরিবর্তে নমস্কারে অভিবাদন সারার পরামর্শ দিচ্ছেন বিশেষজ্ঞরা। হাত পরিষ্কার রাখা, অ্যালকোহলযুক্ত স্যানিটাইরাজে হাত জীবানুমুক্ত করা, মাস্ক ব্যবহার করা-সহ একাধিক সতর্কতামূলক পরামর্শ দেওয়া হয়েছে ইতিমধ্যেই। গোটা বিষয়টিকে সরাসরি আমজনতার কাছে পৌঁছে দিতে এবার অভিনব ব্যবস্থা কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রকের। 

আরও পড়ুন- করোনা ভাইরাস ঠেকাতে রইল ৯টি বিশেষ উন্নতমানের মাস্কের হদিশ

টেলিকম সংস্থাগুলির মাধ্যমে ফোনে ফোনে পৌঁছে যাচ্ছে করোনা ভাইরাস থেকে বাঁচার নানা পদক্ষেপ ও সতর্কতামূলক পরামর্শ। ফোন করলেই ট্রিং ট্রিং রিং এর বদলে শোনা যাচ্ছে করোনা ভাইরাস থেকে বাঁচার কেন্দ্রীয় পরামর্শ। কীভাবে এই মারণ ভাইরাস থেকে নিজেকে সুরক্ষিত রাখবেন তা বিশদে জানানো হচ্ছে ওই বার্তায়। যেহেতু এখনও অবধি করোনা ভাইরাস থেকে বাঁচার তেমন কোনও সুনির্দিষ্ট চিকিৎসা বা টিকা আবিষ্কার হয়নি তাই সতর্কতাই একমাত্র ভরসা। তাই টেলি বার্তায় কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রকের পরামর্শ মেনে যথাযথ সতর্কতায় সুরক্ষিত রাখুন নিজেদের।