যায় সেটি হল পটল। পটলের মধ্যে ভিটামিন এ, বি ১, সি, ক্যালসিয়াম এবং অ্যান্টি অক্সিডেন্ট রয়েছে। বিভিন্ন ভাবে এই পটলকে আমরা খেয়ে থাকি। পুষ্টিকর খাদ্য গরম কাল পড়লেই সবথেকে বেশি যে সব্জিটি বাজারে পাওয়া  যায় সেটি হল পটল। পটলের মধ্যে ভিটামিন এ, বি ১, সি, ক্যালসিয়াম এবং অ্যান্টি অক্সিডেন্ট রয়েছে। বিভিন্ন ভাবে এই পটলকে আমরা খেয়ে থাকি। পুষ্টিকর খাদ্য হিসেবেও এর বহুল ব্যবহার রয়েছে। এছাড়াও পটলের মধ্যে রয়েছে অনেক স্বাস্থ্য উপকারিতা। 

আরও পড়ুন-কোথাও দোল-আবার কোথাও নাম হোলি, কোন রাজ্যে কী নামে পরিচিত রঙের এই উৎসব...

ডায়াবেটিস প্রতিরোধে

বয়স বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে ক্যান্সার থেকে ডায়াবেটিস প্রতিরোধে খুবই কার্যকরী এই সব্জি। 

বয়সের ছাপ দূর করতে

বয়সের ছাপ দূর করতে ত্বককে দৃঢ় রাখতে প্রচুর অ্যান্টি-অক্সিডেন্টের দরকার হয়। ভিটামিন -সি এর উপস্থিতির কারণে পটলকে অ্যান্টি-অক্সিডেন্টের উৎস বলা হয়। 

হজমে সহায়ক

প্রতিদিনের খাদ্যতালিকায় পটল রাখুন। পটলে আঁশের পরিমাণ অনেক বেশি থাকে, যার ফলে পরিপাক প্রক্রিয়া ঠিক ভাবে কাজ করে। যা বদহজমেও কার্যকরী। গ্যাস্ট্রিকের সমস্যাও দূর করে এই পটল। 

আরও পড়ুন-দোল উৎসবে মাতোয়ারা বাংলা, নগরকীর্তন করে উৎসব পালন সমাজসেবীর...

হার্ট ভাল রাখে

খারাপ কোলেস্টেরল কমানোর মাধ্যমে হৃদযন্ত্র ভাল রাখে এই পটল। পটল ফল খেলে উচ্চ রক্তচাপ ও হৃদরোগে আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকি কমে।

ডায়াবেটিস প্রতিরোধে

বেশি পরিমাণ আঁশ থাকায় পটল খেলে রক্তে শর্করার পরিমাণ স্থিতিশীল থাকে। খাদ্য তালিকায় পটল থাকলে ডায়াবেটিসের সমস্যা থেকে মুক্তি পাওয়া যায়।

আরও পড়ুন-উন্নত ফিচার-সহ আসতে চলেছে জিও স্মার্টফোন, এপ্রিলেই হতে পারে লঞ্চ...

ওজন ঠিক থাকে

পটলে ক্যালোরির পরিমাণ অনেক কম থাকে। তাই পেট অনেকক্ষণ ভরা থাকে। এবং যার ফলে খিদে কম পায়। তাই নিয়মিত পটল খেলে ওজন নিয়ন্ত্রণে থাকে।

টাকের সমস্যায়

পটলের রস মাথায় লাগালে মাথা ব্যথা দূর হয়। যাদের মাথায় টাকের সমস্যা রয়েছে তারাও মাথায় লাগাতে পারেন পটলের রস।

রোগ প্রতিরোধে

রোগ প্রতিরোধের সমস্ত ক্ষমতাই রয়েছে এই পটলে। বিশেষত প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন সি রয়েছে পটলে।  এর ফলে শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা ঠিক থাকে। নিয়মিত এই পটল আপনার শরীর স্বাস্থ্য ভাল থাকবে।