ইন্ডিয়া রেটিংস সম্প্রতি জানিয়েছে যে রিলায়েন্স জিও আয় (রেভেনিউ) ও গ্রাহক সংখ্যার ভিত্তিতে সর্ববৃহৎ টেলিকম সংস্থা।  গ্রাহক অধিগ্রহণ করার নিরিখে রিলায়েন্স জিও ইনফোকম যথেষ্ট আগ্রাসী ছিল প্রথম থেকেই আর তাই এই সংস্থা প্রায় সব ক্ষেত্রেই অর্থাৎ আয় (রেভেনিউ), ওয়্যারলেস গ্রাহক মার্কেট শেয়ার, ব্রডব্যান্ড গ্রাহক ভিত্তি এই সবকিছু মিলিয়ে স্বমহিমায় প্রথম স্থানে বিরাজমান।

রিলায়েন্সের জিও-এর এই সমৃদ্ধি হয়েছে ক্রমে ক্রমে আর ভোদাফোন আইডিয়ার গ্রাহক সংখ্যা কমেছে ধীরে ধীরে, গত দুই বছর ধরেই। অর্থাৎ ভোদাফোনের গ্রাহকদের ছিনিয়ে নিতে সক্ষম হয়েছে রিলায়েন্স জিও। এই সময়কালে ৩৪.৯ শতাংশ মার্কেট শেয়ার বেড়েছে জিও-এর  (২ কিউ এফ ওয়াই ২০),  যা এই মুহূর্তে সর্বোচ্চ। আর সবচেয়ে ভালো খবর হল এই যে ভারতবর্ষে টেলিকম ইন্ডাস্ট্রির স্বাস্থ্য আবার ধীরে ধীরে ভালোর দিকে যাচ্ছে । দি অ্যাভারেজ রেভেনিউ পার ইউজার নিয়ে টেলিকম কোম্পানিগুলো যা খবর প্রকাশ করেছে তাতেও গত তিন চার মাসে উন্নতি হয়েছে বলেই মেনে নেওয়া হয়েছে।  সাম্প্রতিক সময়ে যে দাম বৃদ্ধি করল টেলকো ইন্ডাস্ট্রি তাতে দি অ্যাভারেজ রেভেনিউ পার ইউজার আরো বাড়বে ভবিষ্যতে।  প্রায় ২৫ শতাংশ থেকে ৩৫ শতাংশ চার্জ বেড়েছে তার ফলস্বরূপ, দি অ্যাভারেজ রেভেনিউ পার ইউজার বেড়ে যাবে আরো কয়েক মাসের মধ্যে।  এছাড়াও  সামগ্রিক গ্রাহক ভিত্তির সঙ্গে সঙ্গে একইরকমভাবে ব্রডব্যান্ড গ্রাহক ভিত্তির শেয়ারও ধারাবাহিকভাবে বাড়ছে। ট্রাই অর্থাৎ টেলিকম রেগুলেটরি অথোরিটি অফ ইন্ডিয়া ২০১৯-এর ডিসেম্বরে জানিয়েছিল যে টেলিকম টেরিফের ফ্লোর প্রাইস অর্থাৎ সর্ব নিম্ন দর নির্ধারণ করে দেওয়াটা ইতিবাচক পদক্ষেপ।  এর সঙ্গে আরও ভালো পদক্ষেপ হল এক বছরে জিরো ইন্টারকানেক্ট ইউসেজ চার্জ বাস্তাবায়ন করা।  ট্রাই ০.৬/ মিনিট কলের কর লাগু করেছিল ২০১৯ সালের ডিসেম্বর থেকে ২০২০ সালের ডিসেম্বর অবধি। তারপরে এই ব্যবস্থাটির বাস্তাবায়নের তারিখ পিছিয়ে হয়েছে ২০২১ সালের ১ লা জানুয়ারি।  ডেটা সাবস্ক্রাইবারের শেয়ারে এবং ডেটা ট্রাফিক বৃদ্ধি আর এর সঙ্গে ডেটা টেরিফের স্থিতাবস্থান  আয় (রেভেনিউ) বৃদ্ধিতে সাহায্য করবে।