আবহাওয়া পরিবর্তন মানেই জ্বর, গায়ে হাতে পায়ে ব্যথা, বমি বমি ভাব এই সব তো নিত্য দিনের সমস্যা। কিন্তু এই সমস্যা আরো জটিল হয়ে ওঠে  যখন শুকনো কাশিতে আক্রান্ত হয়ে পরে রোগীরা। সেখান থেকে সহজে মেলে না মুক্তি, ফলেই কর্মস্থলে, স্থানে অস্থানে, স্কুলে, পরীক্ষার হলে কাশতে কাশতে উষ্ঠাগত প্রাণ। কী ভাবে মিলবে সমাধানের পথ বোঝা দায়। তাই জেনে নিন বেশ কয়েকটি সহজ উপায়, যাতে ওষুধ ছাড়াই ঘরোয়া উপায় মিলবে সমাধান-
১. গার্গেলঃ গরম জলে কুলকুচি বা গার্গিল করা প্রয়োজন, এই সময় নিয়মিত গরম জল করে তাতে অল্প নুন বা একটি ডিসপ্রিণ দিয়ে, তা দিয়ে যদি গার্গিল করা যায়, সহজেই মিলবে স্বস্তি।
২. মধুঃ মধু শরীরের অনেক সমস্যা সমাধানে সাহায্য করে। তাই সকালবেলা ঘুম থেকে উঠে এক চামচ মধু সকলেরই খাওয়া প্রয়োজন। কিন্তু শুষ্ক কাশির কবল থেকে বাঁচতে মধু ভুমিকা অপরিসীম। 
৩. তুলসি পাতাঃ অধিকাংশ মানুষের বাড়িতেই সকালে ঠাকুরের ফুল আসে, বা তুলসি গাছ থাকে। সেখান থেকে দুটো পাতা তুলে নিয়ে চিবিয়ে খেলে কাশির সমস্যা মিটবে অনেকটা। 
৪. হলুদঃ গলায় যদি ইনফেকশন থেকে কাশি হয়ে থাকে, তাহলে হলুদের থেকে ভালো ওষুধ পাওয়া সম্ভবই নয়। কাঁচা হলুদ সকালবেলা অল্প পরিমানে চিবিয়ে খেলে মিলবে শান্তি।
৫. রসুনঃ রসুনের গুণ অনেক, যা নিয়ে কোনও দ্বিমত থাকতে পারে না। এবার সেই রসুনই কীভাবে শুকনো কাশির মোক্ষম ওষুধ হিসেবে কাজ করে, তা একদিন খেলেই ফল পাবেন হাতে নাতে।