শাজাহান আলি, মেদিনীপুর:  এ রাজ্যে সরকারি প্রকল্পের সুবিধা কি স্রেফ শাসকদলের কর্মী-সমর্থকরাই পাবেন? 'বাংলা আবাস যোজনা'য় বাড়ি তৈরিতে অসহযোগিতার অভিযোগে এবার পুরসভার সামনে ধর্নায় বসলেন এক দম্পতি। পুরভবনের গেটের সামনে রীতিমতো রান্নাবান্নাও শুরু করে দিয়েছেন তাঁরা। ঘটনাটি ঘটেছে পশ্চিম মেদিনীপুরের রামজীবনপুরে।

আরও পড়ুন: বিক্রি করা হচ্ছে মাতলা নদীর চর, তৃণমূল নেতাদের বিরুদ্ধে অভিযোগ খোদ বিধায়কের

জানা গিয়েছে, রামজীবনপুর পুরসভার চার নম্বর ওয়ার্ডের বাসিন্দা উত্তম রুইদাস। 'বাংলা আবাস যোজনা'য় বাড়ির জন্য পুরসভায় আবেদন করেছিলেন তিনি। সরকারি প্রকল্পে তাঁর বাড়ির জন্য় অর্থও বরাদ্দ করা হয়। এরপর যথারীতি নিজের পুরানো বাড়িটি ভেঙে ফেলেন উত্তম। কিন্তু যখন নতুন বাড়ির লে-আউট বা নকশা চান, তখন রামজীবনপুর পুরসভার ইঞ্জিনিয়ার তা দেননি বলে অভিযোগ। এদিকে পুরনো বাড়িটাও তো ভেঙে ফেলেছেন। তাহলে থাকবে কোথায়? বৃহস্পতিবার সকাল থেকে সংসারের যাবতীয় সামগ্রী সঙ্গে নিয়ে পুরসভার সামনে ধর্নায় বসেছেন উত্তম রুইদাস ও তাঁর স্ত্রী।

আরও পড়ুন: লোকালয় থেকে দুই কিলোমিটার দূরে মহিলার বিবস্ত্র মৃতদেহ উদ্ধার, খুনের অভিযোগে আটক স্বামী

সরকারি প্রকল্পে তো অর্থ বরাদ্দ করা হয়েছে। তাহলে খামোকা পুরসভা কেন বাড়ি তৈরিতে অসহযোগিতা করছে? উত্তম রুইদাসের দাবি, তিনি বিজেপি-এর সমর্থক। সেকারণে তাঁর সঙ্গে বিমাতৃসুলভ আচরণ করছে পুর কর্তৃপক্ষ। 'বাংলা আবাস যোজনা'র মতো প্রকল্পে তৃণমূল পরিচালিত রামজীবনপুর পুরসভার বিরুদ্ধে পক্ষপাতিত্বের অভিযোগ তুলেছেন স্থানীয় বিজেপি নেতা শিবরাম দাসও। তাঁর অভিযোগ, বিজেপি সমর্থক হলে কোনওরকম সরকারি সুযোগ-সুবিধা পাওয়া যাচ্ছে না। কী বলছেন রামজীবনপুর পুরসভার চেয়ারম্যান নির্মল চৌধুরী? তাঁর সাফাই, নিয়ম মেনে সব কাজ করা হচ্ছে। উত্তম রুইদাসকে অসহযোগিতার অভিযোগ ভিত্তিহীন। অহেতুক রাজনীতি করছে বিজেপি।