সঞ্জীব কুমার দুবে, পূর্ব মেদিনীপুর: তালিকাটা কিন্তু দীর্ঘ হচ্ছে ক্রমশই। করোনা সংক্রমণের হাত থেকে রেহাই পাচ্ছেন না জনপ্রতিনিধিরাও। এবার সংক্রমিত হলেন পূর্ব মেদিনীপুরের এগরার তৃণমূল বিধায়ক সমরেশ দাস। পাঁশকুড়ার কোভিড হাসপাতালে ভর্তি তিনি। তবে বিধায়কের পরিবারের সকলেরই রিপোর্ট নেগেটিভ।

আরও পড়ুন: করোনা সংক্রমণের আশঙ্কায় স্থানীয়দের বাধার মুখে বিডিও, পুলিশের সাহায্যে ঢুকলেন বাড়িতে

স্রেফ বিধায়ক নন, স্থানীয় বলাগড় সেন্টাল কো অপারেটিভের চেয়ারম্যানও তিনি। সন্দেহজনক উপসর্গ থাকায় লালরস বা সোয়াব পরীক্ষা করান প্রবীণ তৃণমূল নেতা সমরেশ দাস। করোনা পজিটিভি রিপোর্ট আসে শুক্রবার। এরপর তড়িঘড়ি এগরার বিধায়কে ভর্তি করা  হয় পাঁশকুড়ার বড়মা কোভিড হাসপাতালে। নিয়মমাফিক পরিবারের সকলকে হোম কোয়ারেন্টাইনে থাকার পরামর্শ দিয়েছে স্বাস্থ্য দপ্তর। স্বাস্থ্য পরীক্ষায় তাঁদের নেগেটিভ রিপোর্ট এসেছে বলে জানা দিয়েছে।

এ রাজ্যে গোষ্ঠী সংক্রমণ শুরু হল না তো? যতদিন যাচ্ছে, লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে আক্রান্তের সংখ্যাও। সাধারণ মানুষ তো বটেই, বিপদে পড়েছেন জনপ্রতিনিধিরাও। গত মাসে শেষের দিকেই করোনা আক্রান্ত হয়ে মারা যান ফলতার তৃণমূল বিধায়ক তমোনাশ ঘোষ। সংক্রমণ ধরা পড়ে রাজ্যের মন্ত্রী সুজিত বসু ও পাটিহাটির তৃণমূল বিধায়ক তথা বিধানসভার মুখ্য সচেতন নির্মল ঘোষেরও। চিকিৎসার অবশ্য় সেরে উঠেছেন দু'জনেই। 

আরও পড়ুন: লাজুক কলেজ পড়ুয়া থেকে জামাত জঙ্গি, কীভাবে মেয়েটার এত বদল ভেবে পাচ্ছে না ধনেখালি

এদিকে আবার দক্ষিণ দিনাজপুরের কুমারগঞ্জের বিধায়ক তোরাফ হোসেন মণ্ডলও করোনা আক্রান্ত হয়ে চিকিৎসাধীন। সংক্রমণ ধরা পড়ার পর চিকিৎসার জন্য কলকাতায় আনা হয়েছে মুর্শিদাবাদের রঘুনাথগঞ্জের বিধায়ক আখরুজ্জামানকেও। এবার সেই তালিকায় নাম উঠল পূর্ব মেদিনীপুরের সমরেশ দাসও। আক্রান্ত বিধায়কের সংখ্যা বেড়ে হল পাঁচ।