শাহাজাহান আলি, মেদিনীপুর: নড়াচড়ার ক্ষমতা নেই, মুখ দিয়ে লালা ঝরছে অনবরত। করোনা আক্রান্ত নয় তো? পুলিশ আবাসনে অসুস্থ হনুমানকে দেখে এবার ছড়াল আতঙ্ক। খবর পেয়ে শেষপর্যন্ত হনুমানকে উদ্ধার করে নিয়ে যান বনদপ্তরের কর্মীরা। ঘটনাটি ঘটেছে মেদিনীপুরে শহরে।

আরও পড়ুন: গোষ্ঠী সংক্রমণের আশঙ্কা, মালদহে 'অনির্দিষ্টকালে'র জন্য বন্ধ হয়ে গেল বিডিও অফিস

করোনার আতঙ্কে থরহরিকম্প অবস্থা সকলের। লকডাউনের কড়াকড়া শিথিল হওয়ার পর পরিস্থিতি আরও ঘোরালো হয়ে ওঠেছে। আনলক পর্বে আক্রান্ত সংখ্যা বাড়ছে হু হু করে। পাল্লা দিয়ে বাড়ছে আতঙ্কও। সেই আতঙ্কে এবার নয়া মাত্র যোগ করল একটি অসুস্থ হনুমান!   

মেদিনীপুর শহরের পুলিশ লাইনে কোয়ার্টারের সংখ্যা ১২। তারই একটিতে সপরিবারে থাকেন শেখ আলকাশউদ্দিন নামে এক ব্যক্তি। বৃহস্পতিবার সকালে যখন প্রাতঃভ্রমণ সেরে ফেরেন, তখন আবাসনের নিচের তলায় সিঁড়িতে একটি হনুমানকে বসে থাকতে দেখেন তিনি। আলকাশের দাবি, হনুমানটি কার্যত নড়াচড়ার করারও ক্ষমতা ছিল না। অসুস্থ ভেবে প্রথমে জল ও খাবার দিয়েছিলেন। কিন্তু সেসব সে মুখেই তোলেনি।  সিঁড়ি দিয়ে যাতায়াত করা যাচ্ছিল না,  হনুমানটির আচরণে রীতিমতো আতঙ্কিত হয়ে পড়েন পুলিশ আবাসনের বাসিন্দারা।  

আরও পড়ুন: পুরসভায় নিয়োগে 'স্বজনপোষণ', বিস্ফোরক অভিযোগ তুললেন খোদ বিদায়ী ভাইস চেয়ারম্যান

নিরুপায় হয়ে মেদিনীপুর পুলিশ লাইনের আরআইকে খবর দেন আবাসিকরা। সেখান থেকে খবর যায় বনদপ্তরে। অনেক কষ্টে হনুমানটি ধরে নিয়ে যান বনকর্মীরা। বনদপ্তর সূত্রে খবর, হনুমানটি গুরুতর অসুস্থ। তার চিকিৎসার ব্যবস্থা করা হবে।