শাহাজাহান আলি, মেদিনীপুর:  করোনা আতঙ্কের মাঝে দলবদল, খাতায়-কলমে পঞ্চায়েত সমিতিতে সংখ্যাগরিষ্ঠতা পেল তৃণমূল। কিন্তু বোর্ড গঠন নিয়ে অচলাবস্থা কি কাটবে? আদালতের রায়ের দিকে নজর রাজ্যের শাসকদলের।

আরও পড়ুন: হেমতাবাদে নিহত বিধায়কের বাড়িতে দিলীপ ঘোষ, শিকেয় উঠল করোনা বিধি

পশ্চিম মেদিনীপুরের কেশিয়াড়ি পঞ্চায়েত সমিতিতে আসন সংখ্যা ২৫। গত পঞ্চায়েত ভোটে ১৩টি আসনে জিতেছিল বিজেপি। আর বাকি ১২টি আসন গিয়েছিল তৃণমূলের দখলে। রিগি-সহ একাধিক অভিযোগে কিন্তু শেষপর্যন্ত বোর্ড গঠন প্রক্রিয়া ভেস্তে যায়। মামলা গড়ায় আদালতে। কেশিয়াড়ি পঞ্চায়েত সমিতি বোর্ড গঠনের দাবিতে জানিয়ে হাইকোর্টে মামলা করে গেরুয়াশিবির। আড়াই বছর পেরিয়ে দিয়েছে। এখনও সেই মামলার নিষ্পত্তি হয়নি।  বোর্ড গঠন নিয়ে অচলাবস্থাও অব্যাহত, শিকেয় উঠেছে পরিষেবা।

এরইমাঝে সোমবার মেদিনীপুর শহরে তৃণমূলের কার্যালয়ে গিয়ে দলবদল করে ফেললেন কেশিয়াড়ি পঞ্চায়েত সমিতির দুই বিজেপি সদস্য শান্তি কিস্কু ও নবকুমার সিং। এমনকী, রাজ্যের শাসকদলের যোগ দিলেন কেশিয়াড়ি বিধানসভা এলাকায় বিজেপি-এর সংযোজক অর্জুন দাস।  কেন? দলত্য়াগীদের বক্তব্য, 'দিলীপ ঘোষেরা যেভাবে দল পরিচালনা করছেন, তাতে মানুষের উন্নয়ন হতে পারে না। তাই উন্নয়নের স্বার্থেই দলবদল করার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন।' 

আরও পড়ুন: বিজেপি-মুখী অবাঙালি ভোট,দলে টানতে ধর্মস্থানে 'ট্যুরের টোপ' তৃণমূলের

তাহলে কি এবার কেশিয়াড়ি পঞ্চায়েত সমিতি বোর্ড করবে তৃণমূল? দলের পশ্চিম মেদিনীপুরের জেলা সভাপতি অজিত মাইতি বলেন, 'বিষয়টি আদালতের বিচারাধীন। আদালতের রায় এলেই আমার বোর্ড গঠন করব।' বিজেপি-র জেলা সভাপতি সমিত দাস বলেন, 'আমাদের জেতা প্রার্থীদের দীর্ঘদিন ধরেই প্রলোভন, এমনকী পুলিশের ভয়ও দেখানো হচ্ছিল। মানুষের মন থেকে বিজেপিকে মোছা যাবে না।'