প্রকাশ্য রাস্তায় সঙ্গমে লিপ্ত হতে বাধ্য করা হল দম্পতিকে। শুধু তাই নয়, সেই ঘটনার ভিডিও তুলে তা পোস্ট করা হল সোশ্যাল মিডিয়ায়। এমনি ভয়ঙ্কর অপরাধের অভিযোগে এক সন্দেহভাজন ব্যক্তিকে গ্রেফতার করেছে পাক পুলিশ। তার বিরুদ্ধে অভিযোগ, সেই অপরাধের মূল পাণ্ডা। তার দুই সহযোগীকে অবশ্য এখনও ধরতে পারেনি পুলিশ।

ঘটনাটি ঘটেছে পাক পঞ্জাব প্রদেশের ফয়জলাবাদ জেলায়। জেলারই বাসিন্দা আল্লাহ দত্ত ও মেরাজ বিবি জানিয়েছেন, গত সপ্তাহে তাাঁরা সেখানকার একটি হাইওয়ের ধারে বসে গল্প করছিলেন। এমনসময় আচমকা তিনজন অজ্ঞাতপরিচয় ব্যক্তি এসে তাদের সেখানেই সঙ্গমে লিপ্ত হওয়ার নির্দেশ দেয়। ওই দম্পতি রাজি না হলে তাদের শারীরিক নিগ্রহও করা হয়। শেষ পর্যন্ত তাদের কথা মেনে নিতে বাধ্য হন ওই দম্পতি।

স্থানীয় পুলিশ জানিয়েছে, ঘটনার ভিডিও ব্যবহার করে ওই দম্পতিকে ব্ল্যাকমেইল করে অর্থ আদায়ের ধান্দা ছিল ওই দুষ্কৃতীদের। কিন্তু, ওই দম্পতির কাছ থেকে কোনও অর্থ না পেয়ে তারা ক্লিপটি সোশ্যাল মিডিয়ায় পোস্ট করে। এদিকে ওই ভিডিও সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হয়ে গিয়ে তীব্র শোরগোল তৈরি হয়। এরপরি তদন্তে নামে পুলিশ।

জানা যায় ওই দুষ্কৃতীদেকর মধ্যে দুই জনের নাম বাবর এবং এহসান। অপরজনের নাম এখনও জানা যায়নি। পুলিশ ইতিমধ্যেই বাবরকে গ্রেফতার করেছে। অপর দুঅজন পালিয়েছে, তাদের গ্রেফতারের জন্য অভিযান চলছে। তিনজনের বিরুদ্ধেই মামলা দায়ের করা হয়েছে।

পুলিশি জিজ্ঞাসাবাদে বাবর দাবি করেছে, ওই দম্পতি আগে থেকেই আপত্তিকর কাজকর্মে লিপ্ত ছিল। তাই সে আর তার সহযোগীদের তাদের জোর করে সঙ্গমে বাধ্য করেছিল। এহসান ঘটনার ভিডিও রেকর্ড করে বলে দাবি করেছে সে।