পাক বিদেশ দফতর সূত্রে জানানো হয়েছে, শুক্রবার ২ অগাস্টই পাক জেলে বন্দী প্রাক্তন ভারতীয় নৌসেনা অফিসারকে কন্সুলার অ্যাক্সেস দেওয়া হবে। সরকারিভাবে পাকিস্তানের তরফে ভারতীয় দূতাবাসকে এই তথ্য জানিয়ে দেওয়া হয়েছে। কিন্তু ভারত এখনও এই প্রস্তাবের কোনও জবাব দেয়নি।

তবে পাকিস্তানের তরফে এপ্রস্তাব যে এসেছে তা স্বীকার করে নিয়েছেন ভারতীয় বিদেশ দফতরের মুখপাত্র রবিশ কুমার। বৃহস্পতিবার তিনি জানিয়েছেন, 'পাকিস্তানের তরফে প্রস্তাব পেয়েছি। আন্তর্জাতিক ন্যায় আদালতের রায় অনুসারে তা খতিয়ে দেখা হবে। কুটনৈতির পথে এই বিষে পাকিস্তানের সঙ্গে আমরা যোগাযোগ রাখছি'।

তিনি আরও জানান, আন্তর্জাতিক আদালত কিছু গাইডলাইন দিয়েছে। সেইগুলি পাকিস্তান মেনেছে কিনা তা দেখে, সময়মতো পাকিস্তানকে জবাব পাঠাবে ভারত। গত ১৭ জুলাই আন্তর্জাতিক আদালত পাকিস্তানকে জরুরি ভিত্তিতে কন্সুলার অ্যাক্সেস অর্থাৎ দূতাবাসের কর্মীদের সঙ্গে কথা বলার সুযোগ করে দেওয়ার নির্দেশ দিয়েছিল। তার প্রায় সপ্তাহ দুয়েক পরে পাকিস্তান সেই মতো পদক্ষেপ নিল।   

আন্তর্জাতিক আদালত তার রায়ে পাকিস্তানকে আরও নির্দেশ দিয়েছে, কুলভূষণের বিরুদ্ধে আনা অভিযোগ ও তাঁর মামলায় যে রায় দেওয়া হয়েছে, তা পুনর্বিবেচনা করতে হবে। পাকিস্তান দাবি করে গত ২০১৬ সালের ৩ মার্চ তাদের নিরাপত্তা বাহিনী বালুচিস্তান থেকে কুলভূষণকে আটক করেছিল। তাঁর বিরুদ্ধে গুপ্তচরবৃত্তির অভিযোগ এনেছে পাকিস্তান।