গত বছর ফ্রেঞ্চ ওপেনে রোলাঁ গারোর লাল কোর্টে ঝড় তুলেছিল সেরেনা উইলিয়ামস-এর 'ব্ল্যাক প্যান্থার' ক্য়াটস্যুট। বিতর্কের পর অবশ্য তা নিষিদ্ধ করা হয়েছিল। এইবছরও রোলাঁ গারোয় আলোচনায় সেই সেরেনার পোশাক। তবে এইবার আর ক্যাটস্যুট নয়, সেরেনা এলেন সুপারহিরোদের মতো কাঁধে 'কেপ' জড়িয়ে।

সুপারম্যান বা ব্যাটম্যানদের কাঁধ থেকে পিছনের দিকে যেরকম কেপ ঝুলতে দেখা যায়, এদিন রোলাঁ গারো প্রবেশের সময়ে সেরেনা উইলিয়ামসের কাধথেকেও সাদা-কালো রঙয়ের সেরকমই কেপ দেখা গেল। তাতে ফরাসী ভাষায় লেখা ছিল 'মা', 'চ্যাম্পিয়ন', 'রানী' ও 'দেবী'। খেলার সময়ে কেপি খুলে ফেলেন সেরেনা। তার নিচে ছিল কালো-সাদা জেব্রা প্রিন্টের ড্রেস।

৩৭ বছরের সেরেনা আর একটি গ্র্যান্ড স্ল্যাম জিতলেই মার্গারেট কোর্টের সর্বকালের সেরা ২৪টি গ্র্যান্ড স্ল্যাম জেতার রেকর্ড স্পর্শ করবেন। পোশাকে ঝড় তুললেও প্রথম রাউন্ডের প্রথম সেটে কিন্তু রুশ প্রতিদ্বন্দ্বী ভিতালিয়া দিয়াতচেঙ্কোর বিরুদ্ধে চাপে পড়ে গিয়েছিলেন। ২-৬ পয়েন্টে তিনি প্রথম সেট হারান। তারপর অবশ্য পরের দুই সেটে ৬-১, ৬-০ ফলে সহজেই জয় পান উইলিয়ামস।  

ম্যাচের পর অবশ্য পোশাক নিয়েই বেশি প্রশ্নের মুখে পড়তে হয় টেনিস কিংবদন্তিকে। তিনি জানান, ওই কেপ পরে তিনি সবাইকে মনে করিয়ে দিতে চেয়েছেন, প্রত্যেকেই চাইলে একই সঙ্গে চ্যাম্পিয়ন ও রানী হতে পারেন। তবে তার ওজন বহন করা খুব একটা সহজ নয় বলেও জানিয়েছেন সেরেনা। তবে সেরেনা উইলিয়ামস নামটার ভার বহন করাটাও একইরকম কঠিন।

গত বছর, বিতর্ক হলেও এই বছর সেরেনার পোষাক নিয়ে কিন্তু উচ্ছ্বসিত টেনিস ভক্তরা। অনেকেই বলেছেন, নিশ্চিতভাবে এই পোষাক নিয়ে ফ্রেঞ্চ ওপেন কর্তৃপক্ষের আপত্তি থাকবে না। কেউ আবার এক কদম এগিয়ে বলেছেন, সেরেনাই টেনিসের ইবিষ্কর্তা। তিনি যা ইচ্ছে পরতে পারেন। বাকি সকলেই একবাক্যে মুগ্ধতা প্রকাশ করেছেন সেরেনার পোষাক নিয়ে।

বস্তুত মহিলাদের টেনিস কোর্টে সেরেনা শুধু যে নতুন মানদণ্ড স্থাপন করেছেন তাই নয়, ফ্যাশনেও তিনিই পথপ্রদর্শক। অনেক সময়ই তাঁর পোশাক বিতর্ক তৈরি করলেও নতুন নতুন পোশাকে নিজেকে নতুন করে আবিষ্কার করতে কখনও পিছিয়ে থাকেননি টেনিস কোর্টের 'মা', 'চ্যাম্পিয়ন', 'রানী' তথা 'দেবী'।