বড় ব্যবধানে পাকিস্তানকে হারালো ভারত। ভারতের বিরুদ্ধে হেরে হতাশ পাকিস্তান শিবির। মঙ্গলবার সাউথ আফ্রিকার মাটিতে ইতিহাস তৈরী করলো ভারত। দশ উইকেটে ম্যাচ জিতে ফাইনালে নামছেন তারা। পর পর তিনবার অনুর্ধ ১৯ বিশ্বকাপের ফাইনালে পৌঁছলেন তারা। 

কিন্তু এই সমস্ত ঘটনাকে ছাপিয়ে আলোচ্য হয়ে উঠছে ভারতীয় ক্রিকেটার দের স্পোর্টসম্যানশিপের ঘটনা। ম্যাচে বোলিং করার সময় ভারতীয় বোলার সুশান্ত মিশ্রর একটি বাউন্সার ছিটকে লাগে পাকিস্তানের ওপেনার হায়দার আলীর কাঁধে। বলে যথেষ্ট গতি ছিল। বলের আঘাতে ব্যাটসম্যান যন্ত্রণায় কাতরাতে থাকেন। সমস্ত প্রতিদ্বন্দ্বীতা ভুলে হায়দারের দিকে দৌড়ে যান সুশান্ত। হায়দারের কাঁধে হাত রেখে জানতে চান যে তিনি ঠিক আছেন কিনা। এরপর মাঠে নামতে দেখা যায় পাকিস্তান দলের ফিজিওকে। হায়দারের সেবা-শুশ্রূষার জন্য কিছুটা সময় ব্যয় হয়। তিনি খেলার অবস্থায় এলে তার এবং সুুশান্তর মধ্যে কথা হয়। 

চোট লাগার পরেও ব্যাট হাতে অর্ধশতরান করেন হায়দর। কিন্তু তার সেই ইনিংস কোনো কাজে লাগেনি। পাকিস্তানের করা মাত্র ১৭২ রানের টার্গেট তুলতে কোনো উইকেট খোয়াতে হয়নি ভারতকে। ভারতের দুই ওপেনার যশস্বী এবং সাক্সেনা অবিচ্ছেদ্য জুটিতে ১৭৬ রান তুলে ম্যাচ জিতিয়ে দেন। অসাধারন ব্যাটিং করে শতরান করেন যশস্বী। তিনি ১০৫ রানে অপরাজিত থাকেন। ৫৯ করে সাক্সেনাও অপরাজিত থাকেন।