ইস্টবেঙ্গল নয়, আগামী মরশুমে এটিকের হয়েই খেলবেন জবি জাস্টিন। বৃহস্পতিবার প্রত্যাশিত ভাবেই সেই  ছাড়পত্র দিয়ে দিল এআইএফএফ। 
চুক্তি বিতর্কে কেরলের স্ট্রাইকার নতুন মরসুমে কোন দলে খেলবেন, তা নিয়ে তৈরি হয় বিতর্ক। 

আরও পড়ুন- ফের ইস্টবেঙ্গল জার্সিতে পাহাড়ি বিছে! শতবর্ষে সম্মান পাচ্ছেন পিকে-কপিল

জবির নিজের দাবি ছিল, তিনি আইএসএল দল এটিকের চুক্তিতে সই করেছেন। আবার ইস্টবেঙ্গল জবির সই করা চিঠি জমা দিয়ে দাবি করেছিল, জবি তাদের হয়েই খেলার প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন। জবি ইস্যুতে প্রথমে আইএফএ-কে তদন্তের দায়িত্ব দেয় সর্বভারতীয় ফুটবল ফেডারেশন।  

আরও পড়ুন- বিশ্বকাপের যোগ্যতা অর্জন, ভারতের সামনে কাতার-ওমান! তাতে সুবিধাই সুনিলদের

হস্তলেখা বিশেষজ্ঞকে দিয়ে জবির সই পরীক্ষা করে এবং ইস্টবেঙ্গল ও এটিকের সই পরীক্ষা করে রাজ্য ফুটবল সংস্থা ইস্টবেঙ্গলের পক্ষেই রায় দিয়েছিল। এর পরই বিষয়টি এআইএফএফের প্লেয়ার স্ট্যাটাস কমিটিতে যায়। কিন্তু এআইএফএফের ওই কমিটির সদস্যরা মনে করছেন, যেহেতু জবি একটি চুক্তিতেই সই করেছেন এবং সেটি এটিকের, তাই তিনি নতুন মরসুমে আইএসএল দলটির হয়েই খেলবেন। এছাড়াও প্লেয়ার স্ট্যাটাস কমিটির সদস্যদের দাবি, ফেডারেশনের নিয়ম অনুযায়ী পুরনো চুক্তি শেষ হওয়ার ছ' মাসের মধ্যে যে কোনও খেলোয়াড় নতুন ক্লাবের সঙ্গে চুক্তি করতে পারেন। সেই নিয়মেই এটিকে-তে খেলার ছাড়পত্র দেওয়া হল জবিকে। 

জবির বিষয়টি ফেডারেশনের হাতে যাওয়ায় ধরেই নেওয়া হয়েছিল জবিকে আইএসএল দলে খেলারই ছাড়পত্র দেওয়া হবে। কারণ উল্টো সিদ্ধান্ত নিলে চটে যেত এটিকে ম্যানেজমেন্ট। যার জেরে স্পনসর সংস্থার রোষে পড়তে হত ফেডারেশনকে। প্রশ্ন উঠছে, নিজেরাই সিদ্ধান্ত নিলে তাহলে আর আইএফএ-কে দিয়ে তদন্ত করানোর মানে কি থাকল? আপাতত নতুন মরশুমে এটিকে- তে নিজেকে প্রমাণ করাটা যেমন জবির চ্যালেঞ্জ, তেমনই তাঁর বিকল্প তৈরি করাটাও ইস্টবেঙ্গলের স্প্যানিশ কোচ আলেজান্দ্রো মেনেন্দেসের কাছে চ্যালেঞ্জ।