সিরিজের চতুর্থ ম্যাচও সুপার ওভার থেকে জিতে নেয় ভারত। প্রথমে ব্যাট করতে নেমে ব্যাটিং বিপর্যয়ের সম্মুখীন হয় ভারতীয় ক্রিকেট দল।একদময় ৮৮ রানে ৬ উইকেট হারিয়ে রীতিমতো বিপাকে পড়ে গিয়েছিল ভারত। সেখান থেকে মনীশ পান্ডের বুদ্ধিদীপ্ত ব্যাটিং ভারতকে ভদ্রস্থ স্কোরে পৌঁছে সাহায্য করে। দলের জয়ে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা নিতে পেরে সন্তুষ্ট মনীশ পান্ডে নিজেও।

ভারতের জাতীয় দলে মনীশ পান্ডে নতুন মুখ নয়। ২০০৮ এ যখন বিরাট কোহলি ডেবিউ করেছিলেন তখন মনীশ পান্ডের নাম নিয়েও চর্চা হয়েছিল। সেখান থেকে বিরাট বর্তমানে ভারতীয় দলের অধিনায়ক। আর মনীশ বিক্ষিপ্ত ভাবে দলে সুযোগ পেয়েও নিজের জায়গা পাকা করতে পারেনি। এমন নয় যে তিনি পারফরম্যান্স দিতে পারেননি। এর আগে অস্ট্রেলিয়ায় সেঞ্চুরি করে ম্যাচ জিতিয়েছেন। কিন্তু নানা কারণে নিজে দলে পাকা জায়গা পাননি। ২০২০ টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের আগে অধিনায়ক কোহলি তাকে সেই সুযোগ টা দিয়েছেন। উইকেটকিপার রিসভ পন্থের বদলে ৬ নম্বরে আপাতত মনীশ কেই সুযোগ দিয়েছেন কোহলি।  সেটা কতটা কাজে লাগাতে পারেন মনীশ সে দিকে নজর থাকবে।

শুক্রবার যখন মনীশ ব্যাট করতে নামেন তখন চার উইকেট হারিয়ে দল ধুঁকছিল। তিনি নামার আরো দুটো উইকেট পরে দ্রুত। কিন্তু ভুল করেননি মনীশ। প্রথমদিকে এক, দুই রান নিয়ে স্কোরবোর্ড সচল রাখার চেষ্টা করেন তিনি। পরে শেষ ওভার গুলিতে চালিয়ে থেকে ধুঁকতে থাকা স্কোরবোর্ডকে ভদ্রস্থ জায়গায় পৌঁছে দেন মনীশ। ৩৬ বল খেলে অপরাজিত ৫০ রান করেন মনীশ। 

৬ নম্বরে ব্যাটিং টা ধীরে ধীরে রপ্ত করছেন বলে জানিয়েছেন মনীশ। আইপিএলে তিনি যেখানে ব্যাট করেন, ভারতের হয়ে খেলার সময় সেখানে ব্যাটিং করার সুযোগ নেই। তাই নিজের স্টাইলে কিছু পরিবর্তন করে ছয় নম্বর জায়গাতেই ভালো পারফরম্যান্স করতে চান মনীশ।