শেষবার মাঠে নেমেছিলেন গতবছরে। সাউথ আফ্রিকার বিরুদ্ধে টি-টোয়েন্টি সিরিজে তাকে শেষ বার মাঠে নামতে দেখা গিয়েছিল। তারপর পিঠের চোটের জন্য অনেকদিন মাঠের বাইরে হার্দিক পান্ডিয়া। সবাই ভাবছিলেন এই ফেব্রুয়ারিতে হয়তো মাঠে দেখা যেতে পারে তারকা অলরাউন্ডারকে। কিন্তু না, সেরকম কোনো সম্ভবনা আপাতত দেখা যাচ্ছে না। চোটের জন্য নিউজিল্যান্ডের বিরুদ্ধে টেস্ট সিরিজেও পাওয়া যাচ্ছে না পান্ডিয়াকে।

সূত্র মারফত জানা গেছে আবার পিঠের চোট সংক্রান্ত ব্যাপারে পরামর্শ নিতে লন্ডনে যাচ্ছেন হার্দিক। সঙ্গে যাচ্ছেন ন্যাশনাল ক্রিকেট একাডেমির ফিজিও আশিস কৌশিক। ডঃ জেমস অলিবোনের সাথে পরামর্শ করে তবেই তিনি ঠিক করবেন যে কবে মাঠে ফিরবেন। সামনে রয়েছে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ। বিশ্বকাপের দলে জায়গা ফিরে পেতে মরিয়া হার্দিক পান্ডিয়া। 

হার্দিক কে পেলে সুবিধা হয় ভারতীয় দলেরও। সাম্প্রতিক কালে হার্দিকের মত নিখুঁত অলরাউন্ডার পায়নি ভারত। তিনটি ফরম্যাটেই নিজের উপযোগিতা প্রমাণ করেছেন হার্দিক। মারকাটারী ব্যাটিংয়ের পাশাপাশি বল হাতে গুরুত্বপূর্ণ উইকেট তুলতেও সক্ষম হার্দিক। হার্দিকের অনুপস্থিতিতে অনেক অলরাউন্ডার কে খেলিয়ে দেখেছে ভারত। কিন্তু শিবম দুবে কিংবা শার্দুল ঠাকুররা ব্যাটিং বোলিং দুটি বিভাগে ধারাবাহিক ভাবে পারফরম্যান্স করে দেখাতে পারেননি। জাদেজা ভালো পারফরম্যান্স করলেও তিনি একজন স্পিন বোলিং অলরাউন্ডার। অস্ট্রেলিয়ান পিচে তার বোলিং কতটা কাজে লাগবে তা নিয়ে সন্দেহ থেকেই যায়। ফলে ভারতীয় টিম ম্যানেজমেন্ট উৎকণ্ঠার সাথে হার্দিক পান্ডিয়া কবে ফিরতে পারবেন সেই দিকে নজর রাখছেন। ভালো বিকল্প যে এখনও তৈরি নেই।