সেরেনা উইলিয়মসকে হারিয়ে ইউএস ওপেনের ফাইনালে অঘটন ঘটিয়েছিলেন কানাডার উনিশ বছরের বিয়ানকা। কিন্তু পুরুষদের ফাইনালে শেষ পর্যন্ত অঘটন ঘটতে দিলেন না রাফায়েল নাদাল। রাশিয়ান প্রতিপক্ষ ডানিল মেদভেদেভকে প্রায় পাঁচ ঘণ্টার লড়াইতে হারিয়ে চ্যাম্পিয়ন হলেন স্প্যানিশ তারকা। 

আর্থার অ্য়াশে এরিনার ফাইনালে শুরু থেকেই নিজের থেকে দশ বছরের ছোট রাশিয়ান প্রতিপক্ষকে চাপে রেখেছিলেন নাদাল। প্রথম দুই সেট ৭-৫, ৬-৩ ব্যবধানে জিতেও নেন তিনি। নাদালের জয় যখন সময়ের অপেক্ষা, তখনই দুরন্ত প্রত্যাবর্তন ঘটান মেদভেদেভ। পরের দু'টি সেট ৫-৭, ৪-৬ ব্যবধানে জিতে নাদালকে কড়া পরীক্ষার মুখে ফেলে দেন মেদভেদেভ। শেষ পর্যন্ত পঞ্চম সেট ৬-৪ ব্যবধানে জিতে চতুর্থবার ইউএস ওপেন খেতাব জিতে নেন তিনি। 

আরও পড়ুন- তারুণ্যের কাছে হারল অভিজ্ঞতা, সেরেনাকে হারিয়ে ইউএস ওপেন খেতাব বিয়ানকার

রবিবারের পর আর একটি গ্র্যান্ড স্ল্যাম খেতাব জিতলেই রজার ফেডেরারকে ছুঁয়ে ফেলবেন নাদাল। ৩৩ বছর বয়সি বিশ্বের দু' নম্বর নাদাল সবথেকে বয়স্ক খেলোয়াড় হিসেবে ১৯৭০ সালের পরে ফ্লাশিং মিডোতে চ্যাম্পিয়ন হলেন। 

তবে প্রথমবার কোনও গ্র্যান্ড স্ল্যাম ফাইনাল খেলতে নাম মেদভেদেভ রবিবার ফ্লাশিং মিডোর দর্শকদের মন জিতে নিয়েছিলেন। একটা সময়ে রাশিয়ান এই তরুণের সমর্থনে গলা ফাটাতে শুরু করেন দর্শকরাও। শেষ পর্যন্ত অবশ্য নাদালের অভিজ্ঞতার কাছেই হার মানতে হল তাঁকে। পঞ্চম বাছাই মেদভেদেভ নাদালের মুখের গ্রাস প্রায় ছিনিয়েই নিয়েছিলেন। ১৯৪৯ সাালের পরে ইউএস ওপেন ফাইনালে প্রথম তিন সেটে ২-১ ব্যবধানে পিছিয়ে থাকা অবস্থায় জয়ের নজির গড়তে পারেননি কেউই। খুব কাছাকাছি এসে রবিবার সেই কীর্তি গড়তে পারলেন না মেদভেদেভও।