অভাবী অনাহারী মানুষদের হয়ে আরও একবার মুখ খুললেন সানিয়া মির্জা। করোনা ভাইরাসের সংক্রমণের জেরে পরিস্থিতি এতটাই খারাপ যে সারা দেশ জুড়ে অসংখ্য মানুষ না খেয়ে, অনাহারে দিন কাটাচ্ছেন। সেই জায়গায় দাঁড়িয়ে এখনও অনেক মানুষ তাদের বাড়িতে সুস্বাদু কিছু রান্না হলে তার ছবি বা ভিডিও ফেসবুকে পোস্ট করছেন। তাদের উদ্দেশ্য করে সানিয়া মির্জা বলেছেন যে তিনি মনে করেন না দেশে এখন এমন পরিস্থিতি রয়েছে যেখানে দাঁড়িয়ে এইসব ভিডিও পোস্ট করা যায়। অসংখ্য মানুষ যেখানে না খেতে পেয়ে দিন কাটাচ্ছেন সেখানে দাঁড়িয়ে মানবিকতার খাতিরেই আপাতত এই রকম ছবি শেয়ার করা বন্ধ রাখা উচিত বলে তিনি মনে করেন। 

আরও পড়ুনঃসিডনি টেস্টে সচিনের ২৪১ হল তার জীবনের সবচেয়ে ধৈর্য্যশীল ইনিংস, বললেন লারা

এর আগেই অবশ্য তিনি সেই আর্থিক সাহায্য করে সেই অভাবী মানুষদের পাশে দাঁড়িয়েছিলেন। অভাবীদের উদ্দেশ্যে ১ কোটি ২৫ লক্ষ টাকা দান করে খবরের শিরোনামে উঠে এসেছেন তিনি। টুইটারে গোটা প্রক্রিয়াটি সংক্রান্ত বিবরণ দিয়েছিলেন সানিয়া মির্জা। সেখানে তিনি লিখেছিলেন "গত সপ্তাহ থেকে আমরা একটি দল হিসেবে কিছু দুর্দশাগ্রস্থ পরিবারকে সাহায্য করার চেষ্টা করছি। আমরা হাজারের ওপর পরিবারকে খাদ্য দিয়ে সাহায্য করতে পেরেছি। গত এক সপ্তাহে ১ কোটি ২৫ লক্ষ রুপি সংগ্রহ করেছি। আমরা অন্তত এক লাখ পরিবারকে সহায়তা দিতে পারবো। আমাদের এই প্রচেষ্টা চলতে থাকবে। আমদের সকলকে এই পরিস্থিতিতে এক থাকতে হবে।"

আরও পড়ুনঃঘরবন্দি অবস্থায় বান্ধবী জর্জিনাকে দিয়ে চুল কাটালেন রোনাল্ডো, ভাইরাল ভিডিও

আরও পড়ুনঃকরোনার কোপে স্থগিত হয়ে গেল ফিফা অনুর্ধ্ব ১৭ ও ২০ মহিলা বিশ্বকাপ

প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী দেশবাসী'র কাছে পি.এম-কেয়ারস ফান্ড এ অনুদানের জন্য অনুরোধ করেন। সেই ফান্ডে ক্রিকেট তারকা সুরেশ রায়না এবং সচীন তেন্ডুলকার যথাক্রমে ৩১ লক্ষ ও ২৫ লক্ষ টাকা অনুদান দিয়েছেন। ৮০ লক্ষ টাকা দিয়েছেন রোহিত শর্মাও। সচিন প্রধানমন্ত্রীর পাশাপাশি নিজের রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীর ত্রাণ তহবিলেও ২৫ লক্ষ টাকা অনুদান দিয়েছেন। তাছাড়া অসংখ্য সাধারণ মানুষও নিজের সাধ্যমতো অর্থসাহায্য করেছেন। 

সারা বিশ্ব জুড়ে করোনা ভাইরাসের প্রকোপ ক্রমেই বেড়ে চলেছে। ভারতও তার ব্যতিক্রম নয়। আপাতত ভারতে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ২৯৩১ জন। তার মধ্যে ৬৫ জন এরমধ্যেই মারা গিয়েছেন।