মার্কিন মুলুকে ফের রক্তাক্ত হল বিশ্ববিদ্যালয় চত্বর। টেক্সাসের এ অ্যান্ড এম বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্যাম্পাসে গুলি চালানোর ঘটনায় এখনও পর্যন্ত ২ জনের মৃত্যুর খবর পাওয়া গেছে। মৃত দু'জনেই মহিলা বলে জানা গেছে। হামলায় আহত হয়েছে দুই বছরের এই শিশুও। 

পুলিশ সূত্রে জানা যাচ্ছে, গুলিবিদ্ধ শিশুটির চিকিৎসা চলছে স্থানীয় একটি হাসপাতালে। তার অবস্থা স্থিতিশীল। এর আগে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ এক বিবৃতিতে জানায়, আবাসিক হলে গুলি চালানোর ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে পুলিশ। 

আরও পড়ুন: নাগরিকত্ব আইন স্বপ্ন দেখাচ্ছে ওঁদের, ওয়াঘা পেরিয়ে ভারতীয় হওয়ায় ইচ্ছা ২০০ জন পাক হিন্দুর

প্রাইড রক নামের ওই আবাসিক  হলে সোমবার সকালে এই গুলি চালানোর ঘটনা ঘটে। এক শিক্ষার্থীর ফোনকল পেয়ে ঘটনাস্থেল পৌঁছয় পুলিশ। ঘটনার আকস্মিকতায় সেদিনের মত বন্ধ করে দেওয়া হয় বিশ্ববিদ্যালয়ের পঠনপাঠন। 

ডালাস শহর থেকে ৬৫ মাইল দূরে অবস্থিত এ অ্যান্ড এম বিশ্ববিদ্যালয়। তবে গুলি চালানোর ঘটনায় বিশদে কিছু জানাতে চাইছে না বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ। 

আরও পড়ুন: আজও দাপিয়ে ব্যাটিং শীতের, সর্বনিম্ন তাপমাত্রা স্বাভাবিকের ৩ ডিগ্রি নীচে

সাম্প্রতিক বছরগুলিতে যুক্তরাষ্ট্রের স্কুল-কলেজগুলিতে প্রায়শই হামলার খবর পাওয়া যাচ্ছে। গত অক্টোবরেই টেক্সাস এ অ্যান্ড এম বিশ্ববিদ্যালয়ের বাইরে হ্যালোয়িন পার্টিতে বন্দুকধারীর হামলায় অন্তত ২ জন প্রাণ হারান, আহত হন বেশ কয়েকজন। এই পরিস্থিতিতে মার্কিন মুলুকে অস্ত্র আইনে আরও কড়াকড়ি আরোপের দাবি উঠছে। 

এদিকে সোমবার লস অ্যাঞ্জেলেস থেকে সান ফ্রান্সিসকো যাওয়ার পথে একটি যাত্রীবাহী বাসে গুলি চালানোর ঘটনা ঘটে। যাতে মৃত্যু হয় এক যাত্রীর। আহত হন কমপক্ষে ৫ জন। 

ঘটনার পরেই গ্রেফতার করা হয় সন্দেহভাজন ওই বন্দুকধারীকে। তবে হামলার কারণ এখনও স্পষ্ট নয় বলে জানাচ্ছে ক্যালিফোর্নিয়া পুলিশ।

 এক যাত্রী মার্ক গ্রাবান (২৯) জানান, বাসে ওঠার সময় এক ব্যক্তির সঙ্গে কথা কাটাকাটিতে জড়িয়ে পড়ে বন্দুকধারী। এদিকে গুলিবিদ্ধি হয়ে মৃত মহিলার পরিচয় জানা গেছে। ৫১ বছরের এই মহিলা কলম্বিয়ার বাসিবন্দা। এই গটনায় গুরুতর জখম ২ জনের হাসপাতালে চিকিৎসা চলছে।