ভারত পাকিস্তানের মধ্যে উত্তেজনা পারদ যখন ক্রমেই বাড়ছে, সেই পরিস্থিতি কাশ্মীর ইস্যুতে মধ্যস্থতাকরার কথা বললেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক মার্কিন প্রশাসনের এক আধিকারিক জানিয়েছেন, যদি ভারত বা পাকিস্তান রাজি হয়, সেক্ষেত্রে ট্রাম্প মধ্যস্থতা করতে প্রস্তুত।

৫ অগস্ট এক ভারত জম্মু ও কাশ্মীর ৩৭০ ধারা তুলে নেয়। জম্মু ও কাশ্মীর থেকে লাদাখকে পৃথক করে দুটি কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলে পরিণত করে। এরপর থেকেই ভারতের চরম বিরোধিতায় নামে পাকিস্তান। বিশ্বের দ্বারে দ্বারে ঘুরলেও পাকিস্তান হালে পানি পায়নি।  প্রথম থেকে ভারত দাবি করে এসেছে, এটা দেশের অভ্যন্তরীণ বিষয়। অন্য দেশের অভ্যন্তরীণ বিষয়ে যেমন ভারত মন্তব্য করে না, তেমনি নয়াদিল্লি আশা করেছে, ভারতের অভ্যন্তরীণ বিষয়ে  অন্য দেশের মতামত গ্রহণ করা হবে না। তারপরেও পাক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান মার্কিন সফরে গিয়ে ট্রাম্পের সঙ্গে বৈঠকে কাশ্মীর ইস্যু তোলেন। সেই সময় এক বিবৃতিতে মার্কিন রাষ্ট্রপতি ডোনাল্ড ট্রাম্প জানান,  কাশ্মীর ইস্যুতে মধ্যস্থতা করতে  তিনি প্রস্তুত। মোদীও নাকি তাঁকে মধ্যস্থতার জন্য অনুরোধ করেছিলেন। 

ট্রাম্পের এই বিবৃতির পর দেশে বিদেশের সমালোচনার ঝড় বইতে শুরু করে।  ভারতের তরফে স্পষ্ট জানিয়ে দেওয়া হয়, কাশ্মীর ইস্যুতে তৃতীয় কোনও পক্ষের মধ্যস্থতার প্রয়োজন নেই।  এটা ভারতের একান্ত নিজস্ব বিষয়। অন্য দিকে, ডেমোক্র্যাটরা জানান, সিমলা চুক্তি অনুসারে, এই সমস্যা ভারত ও পাকিস্তানকেই সমাধান করতে হবে। তৃতীয় কোনও পক্ষ  এই সমস্যার সমাধান করতে পারবে না। ডেমোক্র্যাটরা দাবি করেন,  ভারত কোনওদিন কাশ্মীর ইস্যুতে তৃতীয় পক্ষের অবস্থান চায় না। তীব্র বিতর্কের মধ্যে ট্রাম্প এই বিষয়ে আর কোনও মন্তব্য পেশ করেননি। তবে সম্প্রতি মার্কিন কংগ্রেসে কাশ্মীর নিয়ে আলোচনা হয়। সেই প্রেক্ষিতেই এই মন্তব্য কি না. হোয়াইট হাউসের তরফে সেই বিষয়ে বিস্তারিত কোনও তথ্য প্রকাশ করা হয়নি।