এবার প্রথমবারের মতো মঙ্গল গ্রহে হেলিকপ্টার চালানোর চেষ্টা করতে চলেছে নাসা। আর সেই হেলিকপ্টারটির নামকরণ করলেন ১৭ বছরের এক ভারতীয় বংশোদ্ভূত ছাত্রী তরুণী বানীজা রুপানী। এই নামকরণ কে করবে তা বাছাই করতে নাসার পক্ষ থেকে 'নেম দ্য রোভার' নামে একটি নিবন্ধ লেখা প্রতিযোগিতার আয়োজন করেছিল। সেই প্রতিযোগিতায় আলাবামা নর্থপোর্ট জুনিয়র হাই স্কুলের ছাত্রী বানীজা রুপানী-ও অংশ নিয়েছিল। আর হাজার হাজার প্রতিযোগীর মধ্যে এই প্রতিযোগিতা জিতে নেন তিনিই।   

ফলে নাসার প্রথম মঙ্গলের হেলিকপ্টারটির নামকরণ করার সুযোগ পান বানীজা রূপানী। তিনি পরামর্শ অনুসারে লাসা হেলিকপ্টারটির নাম দিয়েছে 'ইনজেনুইটি'। ইংরাজি এই শব্দের অর্থ হল বাংলা অর্থ উদ্ভাবনী দক্ষতা। একই সঙ্গে চাতুর্য, অকপপতা এবং উদ্ভাবক ক্ষমতার সংমিশ্রনে যে গুণ তৈরি হয় তাকেই বলা হয় 'ইনজেনুইটি'। এই প্রথম পৃথিবীর বাইরে অন্য কোনও গ্রহে কোনও যান্ত্রিক শক্তিতে চালিত নিয়ন্ত্রিত উড়ান পরিচালনার চেষ্টা করা হবে। সেই থেকে একেবারে উপযুক্ত নামই বেছেছে বানীজা।

মার্চ মাসেই নাসা-র পক্ষ থেকে জানানো হয়েছিল এই হেলিকপ্টারের কথা। তারা বলেছিল, তাদের পরবর্তী যে মার্স রোভার পাঠানো হবে তার সঙ্গে এই হেলিকপ্টারটিও থাকবে। মার্স রোভারটির নামকরণের জন্য আগেই একটি নিবন্ধ প্রতিযোগিতা করেছিল নাসা। সেই প্রতিযোগিতা জিতেছিল আলেকজান্ডার মাথার নামে সপ্তম শ্রেণির এক ছাত্র। তাঁর প্রস্তাব অনুযায়ী রোভারটির নাম দেওয়া হয়েছে 'পার্সেভেরেন্স' বাংলায় যার অর্থ অধ্যবসায়। সেই নাম জানানোর সময়ই হেলিকপ্টারটিরও আলাদা নামকরণের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছিল।

এদিন নাসার পক্ষ থেকে টুইট করে মঙ্গল গ্রহের প্রথম হেলিকপ্টারটির নাম 'ইনজেনুইটি' রাখার কথা ঘোষণা করা হয়। সেইসঙ্ঘে জানানো হয়, 'নেম দ্য রোভার' প্রতিযোগিতা জেতা শিক্ষার্থী বানীজা রুপানী এই নামটি দিয়েছে।