চিনের হুমকি মোকাবিলায় ভারতের পাশে থাকার বার্তা দিয়েছেন মার্কিন পররাষ্ট্র মন্ত্রী মাইক পম্পেও। ভারতের বিদেশ মন্ত্রী এস জয়শঙ্কর ও প্রতিরক্ষা মন্ত্রী রাজনাথ সিং-এর সঙ্গে বৈঠকের পর সাংবাদিক সম্মেলনে তিনি সবরকম পরিস্থিতিতে ভারতের পাশে থাকার বার্তা দিয়েছেন। তিনি বলেন তাঁরা ন্য়াশানায় ওয়ার মেমোরিয়ালে গিয়েছিলেন। বিশ্বের সবথেকে বড়গণতন্ত্র রক্ষার জন্য প্রাণ দেওয়া সৈন্যদের প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়েছেন তিনি। সেই সময় গ্যালওয়ান সংঘর্ষে নিহত ২০ জন ভারতীয় জওয়ানের প্রতিও শ্রদ্ধা জানান তিনি। তারপরই তিনি বলেন ভারতের স্বাধীনতা ও সার্বভৌমত্ব রক্ষার লড়াইয়ে আমেরিকা ভারতের পাশে থাকবে। 


এদিনই কেন্দ্রীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা অজিত ডোভালের সঙ্গে মার্কিন পররাষ্ট্র মন্ত্রী মাইক পম্পেও ও মার্কিন প্রতিরক্ষামন্ত্রী মার্ক এসপার প্রায় ৪০ মিনিট বৈঠক করেন। সূত্রের খবর সেই সময়ই পূর্ব লাদাখ সেক্টরে ১৭৫ দিন ধরে চিনের সঙ্গে চলা সীমান্ত উত্তাপ নিয়েও আলোচনা হয়েছিল। আর সেখানেই গ্যালওয়ান সংঘর্ষ নিয়ে দুই দেশের মধ্যে আলোচনা হয়। মাইক পম্পেও এদিন দিল্লিতি জাতীয় যুদ্ধের স্মৃতিসৌধে যান। সেখানে বীর জওয়ানদের প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে চিনের তীব্র নিন্দা করেন। একই সঙ্গে চিনের উহান থেকে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়েছিল বলেও অভিযোগ করেন।

প্রধানমন্ত্রীরাও ৬-৭ ভাইবোন , নীতিশের খোঁচার উত্তরে সরব লালু পুত্র তেজস্বী যাদব ... 

ভারতীয় নাগরিক হলেই জম্মু ও কাশ্মীরে জমি কেনার ছাড়পত্র কেন্দ্রের. আপনার স্বপ্নের বাড়ি হতে পরে ভূস্ব...
এদিন তিনি আরও বলেন চিনের কমিউনিস্ট পার্টি গণতন্ত্র, আইনের শাসন, স্বাচ্ছতা কিছুই মানে না। তবে ইন্দো-প্রশান্তমহাসাগরীয় এলাকায় মুক্তি ও উন্মুক্ত পরিবেশের জন্য ভারতের পাশে থাকছে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র। দুটি দেশ যৌথভাবেই সকল রকম হুমকির মোকাবিলা করবে। চিনা কমিউনিস্ট পার্টির তীব্র সমালোচান করে তিনি বলেন দক্ষিণ চিন সাগর থেকে হিমলায় আগ্রাসনের নীতি গ্রহণ করেছে বেজিং। আর সেই প্রসঙ্গে তিনি হংকং-এর উদাহরণও টেনে আনেন।