আমেরিকায় বেড়েই চলেছে করোনা সংক্রমণ। ইতিমধ্যে আক্রান্তের সংখ্যা ১৮ লক্ষ ছাড়িয়েছে। মৃতের সংখ্যা ১ লক্ষের গণ্ডি ইতিমধ্যে পেরিয়ে গিয়েছে। গত ২৪ ঘণ্টায় মার্কিন মুলুকে করোনা সংক্রমণে ফের হাজারের বেশি মানুষ প্রাণ হারিয়েছেন। আমেরিকার এই পরিস্থিতির জন্য প্রথম থেকেই চিনের দেক তোগ দাগছেন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। আর বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা 'হু'-র দিকে চিনের প্রতি পক্ষপাতিত্বের অভিযোগ তুলে আসছিলেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট। সেকরাণে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থাকে অর্থ সাহায্য করাও বন্ধ করে দিয়েছিলেন ট্রাম্প। এবার 'হু'-র সঙ্গে আনুষ্ঠানিক ভাবে সব সম্পর্ক ছিন্ন করার ঘোষণা করে দিলেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট।

শুক্রবার হোয়াইট হাউসে এক বিবৃতিতে মার্কিন প্রেসিডেন্ট জানান, "আমরা বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার সংঙ্গে সব সম্পর্কের ইতি টানছি, এবং ওই তহবিল বিশ্বের অন্যান্য জনস্বাস্থ্য খাতে দান করা হবে।" 

 

ট্রাম্প জানিয়েছেন, অভ্যন্তরীণ সংস্কার সাধনে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা চূড়ান্ত ব্যর্থ হয়েছে। এখনো চিনের ওপর নির্ভরতা কাটিয়ে উঠতে পারেনি সংস্থাটি। যে কারণে এই প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে সম্পর্ক ছিন্ন করার মতো পদক্ষেপ নিতে যাচ্ছে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থাকে বছরে ৪৫ কোটি মার্কিন ডলার অনুদান দিত মার্কিন সরকার। সেই অর্থ এখন থেকে অন্য সংস্থার মাধ্যমে বিশ্বের নানা প্রান্তে বিভিন্ন স্বাস্থ্য প্রকল্পে খরচ করা হবে বলে ট্রাম্প জানিয়েছেন। মার্কিন প্রেসিডেন্ট অভিযোগ করেন, যখন প্রথম করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ছড়াতে শুরু করেছিল, তখন চিনা কর্মকর্তাদের কথামতো সারা বিশ্বকে ভুল বুঝিয়েছিল বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা।

লাদাখ নিয়ে কথাই হয়নি দুই রাষ্ট্রনেতার, মোদীর মনখারাপ নিয়ে ট্রাম্পের দাবি উড়িয়ে দিল ভারত

চিনের সঙ্গে বেড়ে চলা সীমান্ত উত্তেজনায় মেজাজ ভাল নেই 'বন্ধু' মোদীর, খবর রাখছেন ট্রাম্প

আমেরিকায় মৃত্যু মিছিল ১ লক্ষ ছাড়িয়ে গেল, এবার সোশ্যাল মিডিয়া বন্ধের হুমকি দিলেন ট্রাম্প

করোনাভাইরাসকে ‘চীনের জঘন্য উপহার’ চলতি সপ্তাহেই মন্তব্য করেছিলেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। এর ৪৮  ঘণ্টা যেতে না যেতেই এবার বিশ্ব স্বাস্থ্য স্বাস্থ্য সংস্থার ওপর খড়গহস্ত হলেন তিনি।

করোনাভাইরাসের প্রকোপের পর থেকেই বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থাকে নানাভাবে দায়ি করে আসছেন ট্রাম্প। গত এপ্রিলে তিনি বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থাকে অর্থ দেওয়াও বন্ধ করার কথা বলেছিলেন। এর আগেও 'হু'-র  বিরুদ্ধে একাধিকবার তোপ দাগতে দেখা গেছে  মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পকে। তাঁর অভিযোগ, সংস্থাটি সময়মতো করোনা সংক্রান্ত তথ্য দিয়ে আমেরকিাকে সাহায্য করেনি, বরং ভুল পরামর্শ দিয়েছে। শুধু তাই নয়, সংস্থাটি চিনকে বেশি সাহায্য করছে বলেও অভিযোগ করেন তিনি। উত্তরে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার প্রধান জানিয়েছিলেন, এটা রাজনীতি করার সময় নয়। চীনকে অতিরিক্ত গুরুত্ব দেওয়া হচ্ছে কারণ, সেখান থেকেই করোনা ভাইরাসের প্রাদুর্ভাব হয়েছিল। ফলে ভাইরাসটির প্রকৃতি বুঝতে সেখানে গিয়ে পরীক্ষা চালাচ্ছেন বিজ্ঞানীরা।