গতকাল খড়দহে দাঁড়িয়ে তৃণমূলকে কড়া হুঁশিয়ারি দিয়েছিলেন বিজেপি নেতা শুভেন্দু। হরিশ চ্যাটার্জী স্ট্রিটে পদ্ম ফোটাবো বলে তীব্র আক্রমণ করেছিলেন শুভেন্দু। এরপরই, রাতারাতি বদল করা হল কাঁথি পুরসভা প্রশাসককে। ওই পুরসভায় প্রশাসকের দায়িত্বে ছিলেন শুভেন্দুর ভাই সৌমেন্দু। ঘটনাটি দুঃখজনক বলে মন্তব্য করেছেন দাদা দিব্যেন্জু অধিকারী।

'মা কালীর চোখ দিয়ে ঝরে পড়ছে জল', আজব ঘটনা দেখতে ভিড় জমিয়েছেন দর্শনার্থীরা

মেদিনীপুরে অমিত শাহের সভায় বিজেপিতে যোগদান করেছিলেন শুভেন্দু। তিনি যোগদান করলেও তাঁর পরিবারের সকলেই এখনও তৃণমূলেই রয়েছেন। এই নিয়ে ডায়মন্ড হারবারের সভা থেকে শুভেন্দুকে কড়া আক্রমণ করেছিলেন অভিষেক বন্দ্যোপাধ্য়ায়। শুভেন্দু নিজের ঘরেই পদ্ম ফোটাতে পারেনি বলে বলে কটাক্ষ করেছিলেন। এর জবাবে খড়দহে গিয়ে হরিশ চ্যাটার্জি স্ট্রিটের বাড়িতে পদ্ম ফোটাবে, এমনই হুঁশিয়ারি দিয়েছিলেন শুভেন্দু। এরপরই, রাতারাতি বদল করা হয় কাঁথি পুরসভার প্রশাসক শুভেন্দুর ভাই সৌমেন্দুকে।

আরও পড়ুন-হাওড়ায় গুলি করে তৃণমূল কর্মী খুন, শ্যুটআউটের ঘটনায় দুই জনকে গ্রেফতার করল পুলিশ

ভাইকে সরিয়ে দেওয়ায় তাঁর পাশে থাকার বার্তা দিয়েছেন আর এক দিব্যেন্দু। সৌমেন্দুর অপসারণ দুঃখজনক বলে মন্তব্য করলেন দিব্যেন্দু। শুভেন্দুর ভাইকে সরিয়ে প্রশাসকের জায়গায় বসানো হয়েছে সিদ্ধার্থ মাইতিকে। এই বিষয়ে দিব্যেন্দু বলেন, ''যাকে প্রশাসকের পদে বসানো হয়েছে। তিনি এলাকারই ভোটার নয়। প্রায় ৫০ বছর ধরে কাঁথি পুরসভার সঙ্গে আমার সম্পর্ক। পুরসভায় আমার একটি অফিস আছে। সেখানে আর যাব না। ভাইয়ের পাশে দাঁড়িয়ে মন্তব্য করলেন সাংসদ দিব্য়েন্দু অধিকারী''। যদিও, মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের বিরুদ্ধে কোনও মন্তব্য করলেন না তিনি।