দল বদলের পরই মেদিনীপুরের বিজেপির সভা থেকে অভিষেক বন্দ্য়োপাধ্য়াকে নিশানা করেছিলেন শুভেন্দু অধিকারী। 'ভাইপো'-র বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগ তুলে তীব্র আক্রমণ করেছিলেন তিনি। একইসঙ্গে, আক্রমণ করেছিলেন অমিত শাহও। 'ভাইপো মুখ্যমন্ত্রী হওয়ার স্বপ্ন দেখছেন' বলে মুখ্যমন্ত্রী মমতার বিরুদ্ধে পরিবারতন্ত্রের অভিযোগ করেছিলেন।

আরও পড়ুন-জেপি নাড্ডার কনভয়ে হামলা, 'হিংসাত্মক হামলার জবাব নির্বাচনে', তৃণমূলকে হুঁশিয়ারি অমিতের

শুভেন্দু ও অমিত শাহের আক্রমণের তীব্র হুঁশিয়ারি দিলেন ডায়মন্ড হারবারের সাংসদ অভিষেক বন্দ্যোপাধ্য়ায়। তিনি বলেন, কয়েক জন নেতা দল থেকে চলে গেলে, দলে কোনও প্রভাব পড়বে না। আগামী নির্বাচনে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সরকার বাংলায় ক্ষমতা আসবে। মন্তব্য অভিষেকের। তিনি আরও বলেন, সূর্যের সঙ্গে লড়াই করলে ঝলসে যাবেন, সেই অমিত শাহ হোক কিমবা দিলীপ ঘোষ কিংবা সিপিএমের সুজন চক্রবর্তী।

আরও পড়ুন-'আমি দল ছাড়ছি না, আমি মমতার অনুগত সৈনিক', শুভেন্দুকে নিয়ে কী বললেন ভাই দিব্যেন্দু

বিধানসভা ভোটের আগে শুভেন্দু অধিকারীর হাত ধরে অমিত শাহের সভায় তৃণমূল ছেড়ে বিজেপিতে যোগদান করেছেন একঝাঁক বিধায়ক ও সাংসদ। এর জেরে তীব্র অস্বস্তিতে তৃণমূল নেতৃত্ব। শুভেন্দুকে নিয়ে সমালোচনায় নেমে পড়েছেন সুব্রত মুখোপাধ্য়ায়, সৌগত বসু, ফিরহাদ হাকিম, কল্য়াণ বন্দ্যোপাধ্য়ায় সহ একাধিক শীর্ষ নেতা। শুভেন্দু বিজেপিতে যোগদানের পরই, সবচেয়ে আক্রমণাত্মক মন্তব্য করেছেন কল্যাণ বন্দ্যোপাধ্য়ায়। আগামী নির্বাচনে শুভেন্দুকে নন্দীগ্রাম বিধানসভায় ভোটে দাঁড়ানোর চ্য়ালেঞ্জ ছুঁড়ে দিয়েছেন তিনি। এই অবস্থায় শুভেন্দুকে নিশানা করে আক্রমণাত্মক হলেন অভিষেকও।