মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সঙ্গে হাত মেলানোর পরই পাহাড়ে ফিরেছেন প্রাক্তন জিটিএ প্রধান বিমল গুরুং। তাঁর বিরুদ্ধে রাষ্ট্রদ্রোহিতা সহ পুলিশকর্মী খুনের মামলাও ঝুলছে। এই অবস্থায় ভোটের মুখে মুখ্যমন্ত্রী মমতার সঙ্গে কাজ করার বার্তা দিয়েছেন তিনি। এরপরই, প্রকাশ্যে বেরিয়ে শিলিগুড়ি ও জলপাইগুড়িতে সভা করেন গুরুং। এবার রবিবার পাহাড়ের সভা থেকে বিজেপির বিরুদ্ধে কার্যত হুঙ্কার ছুঁড়ে দিলেন তিনি। অন্যদিকে, বিমলের বিরুদ্ধে পালটা ঘুঁটি সাজাচ্ছেন বিনয় তামাং পন্থীরা।

আরও পড়ুন-অমিত-শুভেন্দুর নিশানায় 'ভাইপো', বিরোধী আক্রমণের পালটা হুঙ্কার দিলেন অভিষেক

বিমল গুরুং দীর্ঘদিন অন্তরালে থাকার পর প্রকাশ্যে আসার পরই বিজেপির বিরুদ্ধে সুর চড়িয়েছেন তিনি। এই অবস্থায় পাহাড় ও সমতলের বেশ কয়েকটি সভা থেকেও কেন্দ্রের বিরুদ্ধে সুর চড়িয়েছিলেন। এবার রবিবার দার্জিলিঙের চকবাজার মোটর বাসস্ট্যান্ড এলাকায় আয়োজিত সভা থেকে বিজেপিকেই নিশানা করলেন তিনি। এদিনের সভা থেকে বিনয় তামাং ও অনিত থাপাদের নিশানা করে গুরুং বলেন, মিথ্যা না বলে ক্ষমতা থাকলে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে ১৭ থেকে ১৮টা আসন জিতিয়ে দেখান। একসময় যাঁকা ল্যাপটপ চুরি করত, তাঁরা এখন জিটিএ চালাচ্ছে। 

আরও পড়ুন-'বাংলায় ৩৫৬ ধারা জারি নয়, এই কথা বলছে তৃণমূল', বোলপুরে মমতাকে তোপ অমিত শাহের

পাশাপাশি, বিজেপিকে চ্যালেঞ্জ ছুঁড়ে বলেন, এবার ৪৯টি আসন জিতবে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের তৃণমূল। ক্ষমতা থাকলে আটকে দেখান। মমতার সঙ্গে হাত মিলিয়ে বিজেপিকে ঝাঁজরা করে দেব। অন্যদিকে, বিমল গুরুং প্রকাশ্যে বেরিয়ে হুমকি দিলেও হাত হাত ধরে বসে থাকতে রাজি নয় বিনয় তামাং সমর্থকরা। ২৬ ডিসেম্বর গুরুংয়ের পালটা পরিবর্তন যাত্রার ডাক দিয়েছেন বিনয় তামাং। তাঁর উদ্দেশ্য একটাই ভোটের আগে গোর্খা জনমুক্তি মোর্চায় কার বেশি অনুগামী রয়েছে সেই অস্তিত্বের জানান দেওয়া।