রাজ্য-রাজনীতিতে এই মুহূর্তে শিরোণামে শোভন-বৈশাখী জুটি। এবং তারই পিছেপিছে চিট ফান্ড কাণ্ডের অভিযোগের তকমা মেখে রয়েছেন তৃণমূল কংগ্রেসের কুণাল ঘোষ। কুণাল ঘোষ এতদিন যে সকল কাজকর্ম চালিয়েছেন, বিজেপির রোড শোয়ে তা ফাঁস দিয়েছেন শোভন চট্টোপাধ্যায়। এরপরেই আর নিজেকে ধরে রাখতে পারেননি কুণাল ঘোষ। কখনও মুকুল রায়কে গ্রেফতারের দাবি কখনও আবার চিটফান্ড কাণ্ডে শোভনের বিরুদ্ধে অভিযোগ এনেছেন তিনি। তবে বৃহস্পতিবার বৈশাখীকে সঙ্গে নিয়ে সাংবাদিক সম্মেলনে  কুণালকে ফের তোপ দাগলেন । পাশে বসে মুচকি হাসলেন শঙ্কুদেব পন্ডা।

 

আরও পড়ুন, এপ্রিলেই কি ভোট, 'ভোট পরিচালনায় গাফিলতি হলেই শাস্তি', কী বললেন সুদীপ জৈন


চিট ফান্ড কাণ্ড নিয়ে শোভন চট্টোপাধ্যায় বললেন, 'চিট ফান্ড কাণ্ড এই লোকটির কি ভূমিকা ছিল। সে প্রকৃতপক্ষে কোনও রাজনীতিক সঙ্গে যুক্ত ছিলেন না। মমতা বন্দ্য়োপাধ্যায় তখন চিন্তা ভাবনা করে ৩ জনকে সাংসদ করেছিলেন। সেই তিন জনের মধ্য়ে এই মানুষটিও জড়িয়ে রয়েছেন। এখানেই শেষ নয় এরপর ইনকাম ট্য়াক্স ফাঁকি এবং অবৈধ টাকা আয়ের প্রসঙ্গ তুলে তিনি বলেন,' পকেটমারকে ধরে নিয়ে এসে যারা মুখপাত্র করেছে, তারা দেখবেন পায়ের তলা থেকে মাটিটা কোন দিন সরে গিয়েছে। নাম না করে একের পর এক তোপ দাগলেন কুণাল ঘোষকে শোভন চট্টোপাধ্যায়। তিনি আরও বলেন,' ৩৬ বছর জন প্রতিনিধি হিসেবে কাজ করেছি। আমাকেও মানুষ জানে,  কুণাল ঘোষকেও জানে। তাই মানুষই এর বিচার করে নেবে।' 

 

আরও পড়ুন, ED হাতের গ্রেফতার প্রাক্তণ তৃণমূল সাংসদ কেডি সিং, ২৩৯ কোটি টাকার- আর্থিক দুর্ণীতির অভিযোগ


কেডি সিংকে এত দেরীতে কেন গ্রেফতার করা হল এনিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন তিনি। কেডি সিংকে নিয়ে তৃণমূল পুরো মিথ্য়ে কথা বলছে। এবং এই বিষয়ে কখনও আমাকে কখনও মুকুল রায়কে কখনও শুভেন্দুকে বিদ্ধ করা হচ্ছে। তৃণমূলকে খোঁচা দিয়ে তিনি বলেন,' যারা বলেন কেডি সিং এর সঙ্গে কোনও যোগাযোগ নেই, তাঁরা অসত্য বলছেন। কোনও দিন কেউ এমনটা কি দেখেছে যে কেডি সিংকে দল থেকে বহিষ্কার করা হয়েছে। একটি চক্রান্তের শিকার হয়ে এগুলি আমার কাছে উঠে এসেছে। তাই কুণাল ঘোষের কাছ থেকে এর সার্টিফিকেট আমাদের নিতে হবে না।'