সোমবার এখনও পর্যন্ত শোভন-বৈশাখীর রোড শো-র অনুমতি দেয়নি লালবাজার। বিজেপির এই মেগামিছিল হলে এলাকায় ব্যপক যানজট তৈরি হবে বলে ব্যাখা লালবাজারের তরফে। তাই এই মিছিলের অনুমতি দেওয়া হয়নি। এরপরেই এবার বিজেপির মেগামিছিল নিয়ে মুখ খুললেন রাজ্য বিজেপির সভাপতি দিলীপ ঘোষ।  এদিকে এত সবের মাঝে মেগা মিছিলে আসা নিয়ে ফের গোসা করেছেন বৈশাখী। 

হুঁশিয়ারী দিলীপের

'কোনও অনুমতি প্রয়োজন নেই, মেগা মিছিল হবেই', বলেই হুঁশিয়ারি দিলেন তিনি।সূত্রের খবর , রবিবারের রাতের বৈঠকে ঠিক হয়েছে, পুলিশের সঙ্গে সংঘাতে যাবে না বিজেপি। সোমবার খিদিরপুর থেকে দক্ষিণ কলকাতার বিস্তীর্ণ অঞ্চল ঘুরে বিজেপির রাজ্য দফতরে যাওয়ার কর্মসূচি নিয়েছিলেন শোভন চট্টোপাধ্যায়। সঙ্গে থাকার কথা বিজেপির রাজ্য পর্যবেক্ষক কৈলাস বিজয়বর্গীয় এবং বান্ধবী বৈশাখী বন্দ্য়োপাধ্য়ায়ের।   এদিকে শেষ পর্যন্ত মানভঞ্জন করা যায়নি বৈশাখীর। ব্যাক্তিগত কারণে এই মিছিলে থাকছেন না বলে জানালেন বৈশাখী বন্দ্য়োপাধ্য়ায়।

 বৈশাখীর গোসা হওয়ার আসল কারণ কী

ঘটনার সূত্রপাত বিজেপির কলকাতা জোনের কমিটি ঘোষণা নিয়ে। ওই কমিটিতে পর্যবেক্ষক শোভন চট্টোপাধ্যায়। সহ-সহায়ক পদে বৈশাখী। এদিকে বৈশাখীর পাশপাশি যুব বিজেপির রাজ্য সহ সভাপতি শঙ্কুদেব পন্ডাকেও ওই কমিটির আহ্বায়ক করা হয়েছে। রবিবার কমিটিতে একই পদে শঙ্কুদেবও কেন, এনিয়ে প্রশ্ন তোলেন বৈশাখী। সূত্রের খবর, শঙ্কুদেব থাকলে তিনি সোমবারের  মেগা মিছিলে অংশ নেবেন না বলেও জানিয়েছেন বৈশাখী।