স্ত্রী সুজাতা নয়, বিষ্ণুপুর লোকসভা কেন্দ্রে জয়ী হতে, তাঁকে সাহায্য করেছিলেন শুভেন্দু অধিকারী। শুভেন্দুর এই অকপট স্বীকারোক্তিতে জল্পনা শুরু হয়েছে রাজ্য রাজনীতিতে। কেননা, ২০১৯ সালের লোকসভা ভোটের সময় শুভেন্দু অধিকারী ছিলেন তৃণমূল কংগ্রেসে। সেই সময় বিজেপির বিরুদ্ধে গলা ফাটাতে শোনা গিয়েছে শুভেন্দুর গলায়। কিন্তু সম্প্রতি, তিনি বিজেপিতে যোগদান করেছেন। এরপরই, সৌমিত্রর সাফল্যের নেপথ্যে শুভেন্দুকেই কৃতিত্ব দিলেন সৌমিত্র খাঁ। 

আরও পড়ুন-অর্মত্য সেনের প্রতি আচরণ, বিশ্বভারতীকে 'অকস্মাৎ অনুপ্রবেশকারী' বলে নোবেলজয়ীকে চিঠি মমতার

তৃণমূল ছেড়ে বিজেপিতে যোগদান দিয়ে বিষ্ণুপুর লোকসভা কেন্দ্র থেকে বিজেপির টিকিটে লড়াই করেছিলেন সৌমিত্র খাঁ। আদালতের নির্দেশে তিনি নিজের কেন্দ্রে প্রবেশ করতে পারেননি। সেই সময় রাস্তায় নেমে তৃণমূলের বিরুদ্ধে লড়াই করতে দেখা গিয়েছিল তাঁর স্ত্রী সুজাতা খাঁ মণ্ডলকে। সেজন্য সৌমিত্র খাঁ তাঁর স্ত্রীর প্রতি কৃতজ্ঞকা স্বীকার করেছেন বারবার। কিন্তু বর্তমানে তিনি বিজেপি ছেড়ে তৃণমূলে যোগদান করেছেন। এরপরই, পালটা সুর শোনা গেল সৌমিত্র খাঁয়ের গলায়। তিনি বললেন, বিষ্ণুপুর লোকসভা কেন্দ্রে জয়ের পিছনে শুভেন্দুর হাত রয়েছে। এই মন্তব্য ঘিরেই একাধিক প্রশ্ন উঠছে রাজ্য রাজনীতিতে।

আরও পড়ুন-'প্রয়োজনে রক্তবন্যা বইবে, কিন্তু, বাংলায় এনআরসি হতে দেব না', বিজেপিকে হুঙ্কার অনুব্রত মণ্ডলের

প্রশ্নগুলি হল, ২০১৯-এর লোকসভা ভোটে তৃণমূলের শুভেন্দুর কাছে সাহায্য চেয়েছিলেন সৌমিত্র খাঁ? নাকি তৃণমূলে থেকে তলতলে বিজেপিকে সাহায্য করেছিলেন শুভেন্দু? নির্বাচনে কী শুভেন্দু-সৌমিত্র খাঁয়ের কিছু বোঝাপড়া হয়েছিল? তাহলে কি নিজের সাংগঠনিক ক্ষমতা ধরে রাখা সৌমিত্রর মধ্যে কিছুই নেই? শুভেন্দুকে কি তাহলে দলে থেকেও বিশ্বাসঘাতকতা করেছেন? এই প্রশ্নগুলি ঘুরে ফিরে উঠে আসছে রাজ্য রাজনীতিতে।