কাঁথির জনসভা থেকে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী যেমন চড়া সুরেই আক্রমণ করেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় তেমনই রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীও বিষ্ণুপুরের নির্বাচনী প্রচারে গিয়ে একহাত নেন মোদীকে। মমতা বলেন, 'আগে প্রধানমন্ত্রীর চেয়ারটাকে প্রচুর সম্মান করতাম। কিন্তু তখন এমন ছিল না।  আমি জীবনে মোদীর মত মিথ্যাবাদী প্রধানমন্ত্রী দেখিনি।' তিনি আরও বলেন মোদী শুধুই মিথ্যাকথা বলেন। তাকপরই তিনি প্রশ্ন করেন কারা গুন্ডা? বিজেপির অত্যাচারের কারণে উত্তর প্রদেশে আইপিএস আধিকারিক চাকরি ছাড়তে বাধ্য হয়েছেন বলেও অভিযোগ করেন তিনি।  মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় আশঙ্কা করেন বিজেপি উত্তর প্রদেশ থেকে দুষ্কৃতী এনে বাংলার সংস্কৃতি নষ্ট করতে পারে।

করোনা-মহামারির সঙ্গে যুদ্ধের একটা বছর পার, ফিরে দেখা লকডাউনের দিনগুলি . 

কেন্দ্রের টাকা আটকে গেছে 'ভাইপো ইউন্ডোতে', কাঁথিতে বাংলায় পরিবর্তনের স্লোগান মোদীর ...

বুধবার জনসভা থেকে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় আরও একবার বেসরকারিকরণ নিয়ে কেন্দ্রীয় সরকারের বিরুদ্ধে তোপদাগেন। তিনি বলেন, একের পর এক সরকারি সংস্থা বেসরকারিকরণ হচ্ছে। ব্যাঙ্কেরের বেসরকারিকরণ হচ্ছে। ব্যাঙ্কে টাকা রাখেন কিনা তাও সভায় উপস্থিত জনতার কাছে জানে চান মমতা। তারপরই তিনি বলেন নোটবন্দির মত ব্যাঙ্ক বন্দি হলে দেশের মানুষের টাকা নষ্ট হবে। তিনি আরও বলেন ২০১৪ সালে প্রত্যেককে ১৫ লক্ষ করে টাকা দেওয়ার প্রতিশ্রুতি দিয়ে দেশের ক্ষমতা দখল করেছিল বিজেপি। কিন্তু তারপরে কোনও টাকাই দেওয়া হয়নি। বিজেপির বিরুদ্ধে প্রতিশ্রুতি পুরণ করার অভিযোগ তুলে তিনি বলেন তিনি যা যা বলেন সবকিছুই করে দেখান। 

এদিনের জনসভায় মমতা স্পষ্ট করে বলে দেন রাজ্যের ২৯১টি আসনে তিনি প্রার্থী। প্রতিটি সিটে তাঁকেই যেন ভোটাররা ভোট দেয়। প্রতিটি সিটে তাঁকে ভোট দিলে তবেই তিনি রাজ্যের বাসিন্দাদের বিনামূল্যে চাল দিতে পারবেন বলেও জানিয়েছেন। তিনি বলেন রাজ্যের মানুষ যদি তাঁকে মুখ্যমন্ত্রী হিসেবে দেখতে চান তাহলে তাঁরা যেন অবশ্যই জোড়াফুলে ভোট দেন। বিষ্ণুপুরের উন্নয়ন নিয়েও বার্তা দিয়েছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তিনি বলেন, বিষ্ণুপুরকে হেরিটেড টাউন করা হবে বলে জানিয়েছেন তিনি। বলেছেন, বিষ্ণুপুরের ঘোড়া ও পট শিল্পীদের জন্য আগামী দিনে বিশেষ পরিকল্পনাও গ্রহণ করা হবে। মমতা জানিয়েছেন তাঁর আমলেও বালুচরি শাড়ি আরওএ উন্নতমানের হয়েছে। বিশ্ব বাজারেও এই শাড়ির কদর বেড়েছে।