দেশের একমাত্র মহিলা মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। আর তাঁর সম্পর্কেই 'অশালীন' মন্তব্য করেছেন বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ। নির্বাচনের আগে এবার এমনটাই অভিযোগ করল তৃণমূল কংগ্রেস। ২৩ মার্চ, বান্দোয়ানে সভা ছিল দিলীপ ঘোষের। বুধবার, দিলীপ ঘোষের ওই সবার বক্তব্যের একটি ভিডিও ক্লিপ পোস্ট করে তাঁর কড়া সমালোচনায় মুখর হয়েছে ঘাসফুল শিবির।

তৃণমূল কংগ্রেসের সরকারি টুইটার হ্যান্ডেলে ভিডিওটি পোস্ট করে সঙ্গের ক্যাপশনে লেখা হয়েছে, 'এইরকম কুরুচিকর মন্তব্য দিলীপ বাবু ছাড়া আর কারোর থেকে প্রত্যাশিত নয়! একজন মহিলা মুখ্যমন্ত্রীর সম্বন্ধে এইরকম নিন্দনীয় ভাষা প্রয়োগ প্রমাণ করে যে বিজেপি নেতারা মহিলাদের সম্মান করে না। বাংলার মা-বোনেরা মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের প্রতি এই অপমানের যোগ্য জবাব দেবে ২রা মে।' (ভাষা ও বানান অপরিবর্তিত)।

কী বলেছিলেন দিলীপ ঘোষ? ২৩ মার্চের ওই সভায় দিলীপ ঘোষ বলেছিলেন, মমতা অদ্ভূতভাবে শাড়ি পরছেন, তাঁর একপা শাড়িতে ঢাকা। অন্য পা খোলা। আর সভায় সভায় তৃণমূল নেত্রী সেই ভাঙা পা দেখিয়ে বেড়াচ্ছেন। পা দেখাতে হলে শাড়ি না পরে বারমুডা পরা ভাল, বলে মন্তব্য করেছিলেন বিজেপির রাজ্য সভাপতি। সেইক্ষেত্রে মুখ্যমন্ত্রীর পা আরও ভাল ভাবে দেখা যাবে, এমনটাও ভরা সভায় বলেছিলেন দিলীপ ঘোষ।

সোশ্যাল মিডিয়ায় এই ঘটনার তীব্র নিন্দা করেছেন তৃণমূল সাংসদ মহুয়া মৈত্রও। তিনি বলেছেন, 'এই বিকৃতমনস্ক বানররা কি মনে করছে তারা বাংলায় জিতবে?' ঘটনার নিন্দা জানিয়েছেন বালি বিধানসভা কেন্দ্রের সিপিএম প্রার্থী দীপ্সিতা ধর-ও। তাঁর মতে এই ধরণের মন্তব্যের মধ্য থেকে বিজেপি নেতাদের মনুবাদী মানসিকতাই প্রকাশ পেয়েছে। বিজেপি নেতারা নারী জাতিকে পুরুষদের থেকে নিচু মনে করে। তাই বিজেপি নেতাদের মুখ থেকে এই ধরণের কথা শোনা যায়। তবে মুখ্যমন্ত্রীও যে তাঁর পায়ে আঘাত লাগার ঘটনাকে নির্বাচনের প্রচারে ব্যবহার করছেন, এমনটাও অভিযোগ এই তরুণ প্রার্থীর।