বঙ্গে বিধানসভা ভোটের আবহে চারিদিকে যখন সোশ্যাল মিডিয়ায় রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী তথা তৃণমূল সুপ্রিমো মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের অডিও ক্লিপিং ভাইরাল হওয়ার ঘটনায় তোলপাড় রাজনীতি থেকে সংবাদমাধ্যম। এই সময়েই তৃণমূলের আর এক শক্ত ঘাঁটি মুর্শিদাবাদে নতুন বিতর্ক। তৃণমূলের জেলা পরিষদের সদস্য তথা নির্দল হিসেবে বিধায়ক পদের প্রার্থী দাপুটে মহিলা নেত্রী সৈয়দ রাফিকা সুলতানার অশ্লীল 'সুপার ইম্পোজড' ছবি হোয়াটসঅ্যাপ গ্রুপে ভাইরাল হয়ে যাওয়ার ঘটনায় ব্যাপক উত্তেজনা তৈরি হয়েছে। অভিযোগ, ওই যাবতীয় অশ্লীল ছবি ‘খয়রামারি গ্রাম পঞ্চায়েতের সদস্য’ নামের তৃণমূলেরই পঞ্চায়েত সদস্যের তৈরি করা গ্রুপ থেকে ভাইরাল করা হয়েছে। খোদ নির্দল প্রার্থী সৈয়দ রাফিকা সুলতানাই এই কথা বলেছেন। ঘটনার জেরে গ্রেফতার করা হয়েছে তৃণমূলেরই এক পঞ্চায়েত সদস্যকে। 

আরও পড়ুন-দীর্ঘ ১ মাসের যুদ্ধ শেষ , নিমতাকাণ্ডে আক্রান্ত বৃদ্ধার মৃত্যু, কাঠগড়ায় তৃণমূল...

 

 

রবিবার কড়া প্রতিক্রিয়া জানিয়ে রাফিকা বলেন, "এটা চক্রান্ত।  সিপিএম থেকে তৃণমূলে আসা জলঙ্গীর বিধায়ক তথা এবারের তৃণমূলের প্রার্থী আব্দুর রাজ্জাক ও তার অনুগামীরাই ঘটিয়েছে। বর্তমান পরিস্থিতিতে আমার সঙ্গে যদি এই ঘটনা হতে পারে তাহলে সাধারণ বাড়ির মা-বোনেরা আজ নিরাপদ নয়"। এই ঘটনায় নির্দল প্রার্থী রাফিকা স্থানীয় সাগরপাড়া থানায় তৃণমূলের ওই পঞ্চায়েত সদস্য মোজাম্মেল শেখের বিরুদ্ধে থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন। তারই ভিত্তিতে গ্রেপ্তার হয় অভিযুক্ত মোজাম্মেল। স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, সম্প্রতি জলঙ্গী বিধানসভা কেন্দ্রে তৃণমূলের অন্দরে চরম টানাপোড়েন শুরু হয়েছে।  তৃণমূল সুপ্রিমো মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের ঘোষিত প্রার্থী আব্দুর রাজ্জাকের বিরুদ্ধে এবারের নির্দল প্রার্থী হিসেবে ভোটে দাঁড়ানোর কথা ঘোষণা করে দিয়েছেন রাফিকা। এরপরেই রাফিকা সুলতানার অশ্লীল ছবি হোয়াটসঅ্যাপ গ্রুপে ভাইরাল হওয়ার ঘটনা সামনে আসতেই নতুন মাত্রা যোগ হয়েছে। এই যাবতীয় ঘটনায় তৃণমূলের বর্তমান বিধায়ক রাজ্জাক ও তার অনুগামীদের নাম জড়িয়ে পড়ায় রীতিমতো ব্যাকফুটে তৃণমূল শিবির থেকে শুরু করে জেলা নেতৃত্ব। 

 

 

রবিবার  রাফিকা সুলতানা বলেছেন, ‘‘স্থানীয় বিধায়কের অঙ্গুলিহেলনে জলঙ্গী ব্লক তৃণমূল সভাপতি রাকিবুল ইসলাম কয়েকজনকে কাজে লাগিয়ে এই নোংরা আচরণের যাবতীয় পরিকল্পনা করে। আমার সুপার ইম্পোজড অশ্লীল ছবি  তৃণমূলের নেতারা  ভাইরাল করেছেন নেটমাধ্যমে। এ জিনিস জলঙ্গীর মানুষজন মেনে নেবেন না। তাঁরা ব্যালটে এর জবাব দেবেন"। এদিকে এই যাবতীয় ঘটনায় মুল অভিযোগের তির যাঁর দিকে সেই অভিযুক্ত তৃণমূলের বিধায়ক তথা প্রার্থী আব্দুর রাজ্জাক জানান, "এই সকল কাজ কে বা কারা করেছে তা আমাদের জানা নেই।  মিথ্যে করে  আমাদের নাম জুড়ে দিয়ে ভোটের আগে চাঞ্চল্য তৈরি করতে চাইছে রাফিকা সুলতানারা"।