উত্তম দত্ত -চুচূড়াঃ- 'খেলা হবে , এই মাঠেতেই খেলা হবে', কেউ কেউ এটা বলতেই পারেন। প্রধানমন্ত্রীর সভার পালটা সভার ডাক দিল তৃণমূল। আগামী ২৪ তারিখে এই ডানলপ ফুটবল ময়দানেই সভা করতে আসছেন তৃণমূল সুপ্রিমো রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। উল্লেখ্য ২২ তারিখে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর জনসভা হবে এই মাঠেই ।

আরও পড়ুন, প্রসেনজিতের বাড়িতে BJP নেতা, পদ্মের মুখ হতে চলেছেন কি টলিউডের ফার্স্টম্যান, জল্পনা তুঙ্গে  

 

 

মমতার সভা নিয়ে পর্যালোচনা 

বুধবার সকালে একঝাঁক দলীয় কর্মীকে নিয়ে মাঠে আসেন হুগলি জেলা তৃণমূল সভাপতি দিলীপ যাদব ,  সঙ্গে ছিলেন মন্ত্রী তপন দাসগুপ্ত, মন্ত্রী অসীমা পাত্র  ও স্থানীয় বিধায়ক অসিত মজুমদার। তাঁরা জানান আগামী ২৪ তারিখে মুখ্যমন্ত্রী জনসভা করতে চলেছেন এই মাঠেই। চন্দননগর পুলিস কমিশনার গৌরব শর্মা এবং ডেপুটি কমিশনার তথাগত বসুর সঙ্গে তাঁরা মাঠ ঘুরে দেখেন এবং কোথায় কি হতে পারে, তার পর্যালোচনা করেন। তবে তাঁদের সভা প্রধানমন্ত্রীর পাল্টা সভা হিসেবে তুলে ধরতে নারাজ তৃণমূল। দলীয় সভাপতি দিলীপ যাদব এর বক্তব্য নেত্রী আসবেন সভা করতে। মাঠটা তাই দেখে যাওয়া হল।

 

 

আরও পড়ুন, পার্শ্বশিক্ষকদের আন্দোলনে সরব দিলীপ, যোধপুর পার্কে তোপ BJP-র রাজ্য সভাপতির  


 প্রশ্ন ছিল এটা কি প্রধানমন্ত্রীর পালটা সভা ? 

প্রত্যুত্তরে তিনি জানান, 'মিডিয়া এই ব্যাপারে কি ব্যাখ্যা  দেবেন সেটা তাঁদের বিষয়। কিন্তু আমাদের সাবজেক্ট হচ্ছে বিগত দশ বছরে এই সরকার কি কি উন্নয়ন করেছেন তা মানুষের কাছে তুলে ধরা । আর এই কাজটি করতেই মূলত দলনেত্রী এখানে আসছেন।' তাঁর সাফাই , 'মমতা বন্দ্য়োপাধ্যায়ের সভা মনে জনসমুদ্র। জনসমাগম ছাড়াও হেলিপ্যাড , বাস গাড়ি রাখার জন্য বৃহৎ জায়গা দরকার। সেই হিসেবে এই মাঠটাই তাঁদের উপযুক্ত মনে হয়েছে । তাই আমরা এটা পালটা সভা মনে করি না । তৃণমূল নেতৃত্বর উপস্থিতির মধ্যেই আগমন ঘটে বিজেপি সাংসদ লকেট চট্টোপাধ্যায়ের। দলীয় অনুগামীদের নিয়ে তিনি মাঠের অপরপ্রান্তে থাকেন। 

 

 

'তৃণমূল, মোদীর আদর্শকেই অনুসরণ করে'-দাবি লকেটের

মুখ্যমন্ত্রীর সভা নিয়ে সাংসদকে প্রশ্ন করা হলে তিনি কটাক্ষের সুরে জানিয়েছেন , 'আমাদের সভা অনেকদিন আগেই ঘোষণা হয়ে গেছে । সেইমত সাফসুতরো চলছে । মমতা বন্দ্য়োপাধ্যায় ঠিক করেছেন প্রধানমন্ত্রীর সভা দেখে পালটা সভা করবেন। শুনেছি শাসকদলকে তো বিরোধীরা সবসময় অনুসরণ করে , এখানে বাংলায় যে শাসকদল আছে সে প্রধানমন্ত্রীকেই অনুসরণ করছে। তার মানে দেখবেন যে তৃণমূলের কার্যকর্তারা প্রধানমন্ত্রীর আদর্শ নীতিকেই অনুসরণ করে সেই দলের দিকেই পা বাড়িয়ে থাকবেন। এটাই আগামী দিনে বার্তা যাবে।' 

 

 


 
'ময়দান ঠিক করতে আড়াইশো লেবার'

তিনি আরও জানিয়েছেন, '  কয়েকদিন ধরেই প্রধানমন্ত্রীর সভাকে ঘিরে এখানে  তৎপরতা তুঙ্গে । বিজেপি নেতৃত্বের কথাঅনুযায়ী সব কিছু আইনমাফিক অনুমোদন নিয়েই এগোনো হচ্ছে । সুদীর্ঘ ওই ময়দানের পেছনের দিকে ঝোপঝাড় পরিস্কার করার জন্য এদিন থেকেই বড়ো বড়ো জেসিপি আনা হয়েছে। সেখানে তৈরী হচ্ছে হেলিপ্যাড।  জি টি রোড থেকে ঘটনাস্থলে পৌঁছনোর যে সংযোগকারী রাস্তা তা অর্থাৎ  ডানলপ কারখানা চত্বরে আইনগত জটিলতা থাকায় সেই রাস্তার অবস্থা সঙ্গীন । ময়দানের ও কিছু সমস্যা আছে। সেই সব কিছু ঠিকঠাক করার জন্য আড়াইশো লেবার লাগানো হচ্ছে বলে বিজেপি সূত্রে জানানো হয়েছে ।