রাজ্যর প্রতিমন্ত্রী জারিক হোসেনের ওপর হামলার ঘটনায় মুখ্যমন্ত্রী তথা তৃণমূল কংগ্রেস সুপ্রিমো সরাসরি দায় চাপিয়েছেন রেলের ওপর। মুখ্যমন্ত্রীর কথায় প্রতিমন্ত্রী জাকির হোসেনের ওপর হামলার ঘটনায় পুরো দায় রেলের। কারণ ঘটনাটি ঘটেছে রেলওয়ে চত্ত্বরের মধ্যেই। তাই পুরো ঘটনার জন্য জবাবদিহি করতে হবে কেন্দ্রীয় সরকারকে। যদিও নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক রেলের তদন্তকারী আধিকারিকরা জানিয়েছে ঘটনার জন্য দায়ি তৃণমূল কংগ্রেসের দলীয় কোন্দল। 

মমতা বন্দ্যোপাধ্য়ায় অভিযোগ করেছেন, গোটা ঘটনাই একটি ষড়যন্ত্রের অংশ। এটি পূর্ব পরিকল্পিত ঘটনা।  বংলার মন্ত্রীকে অন্য একটি দলে যোগ দান করার জন্য চাপ দেওয়া হচ্ছিল বলেও অভিযোগ করা হয়। গোটা বিষয়টি তদন্ত করে দেখা হচ্ছে। তাই এই নিয়ে তিনি আর বিশেষ কিছু বললেন না বলেও জানিয়েছেন। আক্রান্ত মন্ত্রী জাকির হোসেনকে দেখতে এদিন এসএসকেএম হাসপাতালে গিয়েছিলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। 

অন্যদিকে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক মুর্শিদাবাদের ঘটনা সম্পর্কে ওয়াকিবহাল রেলের এক তদন্তকারী আধিকারিক জানিয়েছেন তৃণমূল কংগ্রেসের আভ্যন্তরীন কোন্দলের ফলেই এই ঘটনা ঘটে থাকতে পারে। এই হামলার সঙ্গে জঙ্গি হামলার যোগ নেই বলেও সূত্রের খবর। সূত্রের খরব অনেকেই বিষয়টিকে তৃণমূল কংগ্রেসের সঙ্গে সিপিএমের রাজনৈতিক প্রতিদ্বন্দ্বিতার ফল হিসেবেও দেখছেন। সম্প্রতি বামেদের নবান্ন অভিযানে লাঠি চার্জ করেছিল পুলিশ। তাতেই মৃত্যু হয়েছেন এক বাম কর্মীর। সেই কারণেও তৃণমূল কংগ্রেসের সরকারের মন্ত্রীর ওপর হামলা চালানো হতে পারে বলেও মনে করা হচ্ছে। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক ব্যক্তি বলেছেন, দুই তৃণমূল কংগ্রেস কর্মী জাকির হোসেনকে মৃত্যুর হুমকি দিয়েছিল। ২০১৭ সালে অভিযোগও দায়ের করেছিলেন তিনি। যদিও বিজেপির দাবি বাংলার আইন শৃঙ্খলার অবনতি হওয়ার কারণেই এই জাতীয় ঘটনা ঘটেছে।

দীর্ঘ দিন ধরেই মুর্শিদাবাদ তৃণমূল কংগ্রেসের একটি শক্তপোক্ত ঘাঁটি হিসেবে চিহ্নিত হয়ে রয়েছে। তৃণমূল কংগ্রেসের মুর্শিদাবাদ জেলার সভাপতি আবু তাহের খান চৌধুরী এই হামলার পিছনে বিজেপি বা কংগ্রেসের হাত রয়েছে বলেও মনে করেন। যদিও রাজ্য বিজেপি নেতা কৈলাস বিজয়বর্গিয় ও দিলীপ ঘো। এই হামলার ঘটনার নিন্দা করেছেন। তাঁদের দাবি মন্ত্রীর হামলা প্রমাণ করে যে পশ্চিমবঙ্গ কারোর জন্যই নিরাপদ নয়। রাজ্যের আইন শৃঙ্খলা ভেঙে পড়েছে বলেও তাঁরা উদ্বেগ প্রকাশ করেন। বিধানসভা ভোটের আগে তৃণমূল কংগ্রেসের মন্ত্রীর ওপর হামলার ঘটনায় রীতিমত সরগরম হয়েছে বঙ্গরাজনীতি। যদিও হামলার ঘটনার সত্যতা জানতে কংগ্রেস নেতা অধীর চৌধুরী এনআইএ তদন্তের দাবি করেছেন। 

হিমবাহ ধসে তৈরি হওয়া নতুন হ্রদে পৌঁছেছে উদ্ধারকারী দল, দেখুন ভয়ঙ্কর পাকদণ্ডীর সেই ভিড

পেট্রোলের মূল্যবৃদ্ধি ইস্যুতে সরব প্রধানমন্ত্রী, নাম না করে কাঠগড়ায় দাঁড় করালেন আগের সরকারকে .

গতকাল রাতে মুর্শিদাবাদের জঙ্গিপুরে নিমতি স্টেশনে বোমা ছুঁড়ে হামলা চালান হয় রাজ্যের শ্রমদফতের প্রতিনমন্ত্রী জারিক হোসেনের ওপর। রাতের অন্ধকারেই হামলা চালায় দুষ্কৃতী। এই ঘটনায় তিনি গুরুতর জখম হয়েছিলেন। তাঁর বেশ কয়েকজন সঙ্গীও জখম হয়েছিল। আক্রান্ত অবস্থায় চিকিৎসার জন্য জাকির হোসেনকে মুর্শিদাবাদ থেকে নিয়ে আসা হয়েছে কলকাতার এসএসকেএম হাসপাতালে। সেখানেই চিকিৎসা চলছে তাঁর। হামলার পর থেকেই তৃণমূল কংগ্রেস কাঠগড়ায় দাঁড় করিয়েছেন বিজেপি, কংগ্রেস ও বামেদের মত যুযুধান রাজনৈতিক দলগুলিকে।