তৃতীয় দফার ভোট চলাকালীন হাওড়ার ডুমুরজলার জনসভা থেকে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের বিরুদ্ধে একগুচ্ছ ইস্যুতে চড়া সুরেই আক্রমণ করলেন প্রধানমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তিনি বলেন ১০ বছর ধরে দিদি বাংলার সঙ্গে যা করছেন তা এখন সকলেই বুধতে পারছে। পৌরসভা ও পুরনিগমগুলিকে প্রয়োজনীয় ক্ষমতা প্রদান করা হয়নি বলেও অভিযোগ করেন তিনি। মোদী বলেন দিদি কাজ করেননি বলেই এখন ভোটের সময় হুমকি দিতে হচ্ছে, অপমান করতে হচ্ছে বাংলার মানুষকে। বলতে হচ্ছে দেখে নেব।  

প্রধানমন্ত্রী হাওড়ার জনসভা থেকে মমতার টাকা নেওয়ার কথা তুলে তীব্র সমালোচনা করেন। তিনি বলেন অধিকাংশ জনসভায় মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলেছেন বিজেপি টাকা দিচ্ছে। আর সেই কারণেই ভিড় হচ্ছে। এটা বাংলার মানুষকে অপমান করা ছাড়া আর কিছুই নয়। তারপরই মোদী জনসভায় উপস্থিত জনতা জিজ্ঞাসা করেন, এখানে আসার জন্য আপনারা কি টাকা পান। এই অপমানের বদলা নিতেই ২ মে বিজেপিকে ভোট দেওয়ারও আহ্বান জানান প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। 

মোদী আরও বলেন, বাংলার মানুষ মমতা বন্দ্যোপাধ্য়ায়ের ওপর ভরসা করেছিল। কিন্তু বাংলার মানুষের আশা ভরসা সবকিছু ভেঙে দিয়েছেন তিনি। তিনি বলেন বাংলার ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্প একটা সময় যথেষ্ট উন্নত ছিল। কিন্তু আজ তার বেহাল দশা। আর এই দুরবস্থার কারণ হিসেবে তিনি মমতার সরকারের দুর্ণীতি ও কুশাসনকেই দায়ী করেন। কথা প্রসঙ্গে মোদী শ্যামাপ্রসাদ মুখোপাধ্যায়ের কথা তুলে আনেন। বলেন তিনি বলতেন শাসন মানে রাজত্ব করা হয়। নাগরিকদের স্বপ্নপুরণ করা। 

ভোটের মুখেই মালদায় বিজেপিতে ভাঙন, ডিজে বাজিয়ে মনোনয়ন পেশ আদি বিজেপির সদস্য মনোরঞ্জনের ..

'বাবাকে মুক্তি দাও' চোখ জলে নিখোঁজ CRPF জওয়ানের মেয়ের আর্জি, ভাইরাল মন খারাপ করা ভিডিও ...
বর্তমানে তৃণমূল কংগ্রেসের এমন অবস্থা যে পোলিং এজেন্ট খুঁজে পাওয়া যাচ্ছে না। আর এজেন্ট না পাওয়ার জন্য মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় এখন কেন্দ্রীয় বাহিনী ও বিজেপির সমালোচনায় সরব হয়েছেন বলেও অভিযোগ করেন মোদী। পাশাপাশি তৃণমূল কংগ্রেসের বিরুদ্ধে সিন্ডিকেট তোলাবাজি  কাটমানি ইস্যুগুলি নিয়েও সরব হয়েছেন মোদী।