নিজের এলাকায় ফিরে আইডি বিস্ফোরণকাণ্ডে আক্রান্ত মন্ত্রী বিস্ফোরক দলের বিধায়কের বিরুদ্ধেই, নতুন জল্পনার উস্কানি।এতটাও বোধহয় আশা করেননি কেও। দীর্ঘ প্রায় ২ মাস পরে প্রতীক্ষার অবসান ঘটিয়ে আইডি বিস্ফোরণকাণ্ডে আক্রান্ত রাজ্যের শ্রমদপ্তরের প্রতিমন্ত্রী জাকির হোসেন সাময়িক সময়ের জন্য নিজের গড় মুর্শিদাবাদে ফিরে সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে সোমবার বিস্ফোরক হয়ে উঠলেন।

 

আরও পড়ুন, 'মাথা ভাঙা, পা ভাঙা-ভাঙেনি হৃদয় মমতার', বহিরাগত ইস্যু থেকে বাঁচতে 'ভাদুড়ি' পরিচয় টানলেন জয়া 

 

 


 সারা শরীর জুড়ে মন্ত্রী বিস্ফোরণের ক্ষত তাজা হয়ে রয়েছে, এখনও চিকিৎসাধীন। সেই অবস্থাতেই মনোনয়ন পেশ সহ তাঁর ঘনিষ্ঠদের সঙ্গে একান্ত জরুরি বৈঠক করতে হেলিকপ্টারে মুর্শিদাবাদে কয়েক দিনের জন্য  জঙ্গিপুরে নিজের বাড়িতে এসেছেন তৃণমূল প্রার্থী জাকির হোসেন। সেইমতো দলের কর্মী-সমর্থকদের সঙ্গে কথা বলছেন বলে সূত্রের খবর। আর এরই মাঝে নাম না করে বিস্ফোরক ভঙ্গিতে শুরুতেই নিমতিতা কাণ্ড নিয়ে নিশানা করলেন তারই দল তৃণমূলের সুতির বিধায়ক প্রার্থী ইমানি বিশ্বাস কে। আর এই ঘটনায় স্বাভাবিকভাবেই গোষ্ঠীদ্বন্দ্বের তত্ত্বে সিলমোহর যেমন করলো পাশাপাশি নতুন জল্পনাও উস্কে উঠেছে এদিন বলেই মনে করছে জেলার ওয়াকিবহাল মহল। 

 

আরও পড়ুন, বাংলা জয়ের লক্ষ্যে এবার টানাটানি 'হিন্দু-ভোটে', BJP-র সৌজন্য়েই বদলাল ছবি 

 

 


ভোটের মুখে যা অস্বস্তি বাড়িয়ে তুলবে শাসকদলের তা বলাই বাহুল্য। মাস দুয়েক আগে ফেব্রুয়ারি মাসের শেষ  রাতে তিস্তা তোর্সা এক্সপ্রেস ধরতে নিমতিতা স্টেশনের ২ নম্বর প্লাটফর্মে হাজির হন  জাকির হোসেন। সেই সময় স্টেশনে বোমা বিস্ফোরণ হয়। যার জেরে গুরুতর জখম হন শ্রমমন্ত্রী-সহ কমপক্ষে ২৬ জন। রাতেই জাকির হোসেনকে নিয়ে আসা হয় কলকাতায়। সেই থেকে কলকাতার এসএসকেএম হাসপাতালে চিকিৎসাধীন মন্ত্রী। অস্ত্রোপচারের পর পরিস্থিতি স্থিতিশীল হলেও এখনও পুরোপুরি সুস্থ নন তিনি। কিন্তু জঙ্গিপুর থেকে এবারও তাঁকেই প্রার্থী  করেছেন তৃণমূল সুপ্রিমো মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ।

আরও পড়ুন, 'তপনকে ক্ষমা করে দিয়ে ভোটটা দেবেন তো' জনসভায় এসে চরম শঙ্কায় মমতা 

 


 ফলে এলাকায় যাওয়া অত্যন্ত প্রয়োজন। কিন্তু তার পক্ষে প্রচারে যাওয়া কোনওভাবেই সম্ভব নয় বলে জানিয়েছেন চিকিৎসকরা। ফলে আগেই শ্রমমন্ত্রী জানিয়েছিলেন মনোনয়ন পেশ করতে মুর্শিদাবাদ যাবেন তিনি। সেই মতোই হাসপাতাল থেকে কয়েকদিনের জন্য ছুটি নিয়ে হেলিকপ্টারে মুর্শিদাবাদে এসেছেন তিনি। জঙ্গিপুরের বাড়িতে কর্মীদের সঙ্গে দেখা করেন এদিন। এদিকে তার ওপর আইডি বিস্ফোরণে নিমতিতা কান্ডে নাম জড়ানো সুতির  বিধায়ক তথা তৃণমূল প্রার্থী ইমানি বিশ্বাসকে জাতীয়তাবাদ কারী সংস্থা এএনআই এর তরফে একাধিকবার তলব করা হয়েছে ।এই যাবতীয় ঘটনার পিছনে তাঁর যোগ রয়েছে, এই অভিযোগও উঠছে। 

আরও পড়ুন, নিমতিতা বিস্ফোরণ কাণ্ডের তদন্তে তৎপর এনআইএ, এলাকায় চলল তল্লাশি অভিযান  

 

 এবিষয়ে আক্রান্ত মন্ত্রী জাকির হোসেনকে প্রশ্ন করা হলে জাকির হোসেন বলেন, যিনি মারাত্মক এই ঘটনার জন্য যুক্ত বা  চক্রান্ত করেছেন তার বা তাদের কঠোর সাজা হওয়া একান্ত প্রয়োজন । আর কোনও কারণ ছাড়া তো কাউকে এনআইএ ডাকে না । নিশ্চয়ই কিছু আছে। উনি যদি দোষী হয়ে থাকেন তবে যেন কঠোরতম শাস্তি দেওয়া হয়।তবে দেখতে হবে কোনও নিরপরাধ ব্যক্তি যেন এই ঘটনায় সাজা না পাই।' স্বাভাবিকভাবেই মন্ত্রীর এই বিস্ফোরক বক্তব্য উসকে দিয়েছে গোষ্ঠীদ্বন্দ্বের তত্ত্ব।যা নিয়ে রাজনৈতিক মহলে ইতিমধ্যেই শোরগোল পড়েছে। প্রসঙ্গত সূত্র মারফত জানা যায়,দু-একদিনের মধ্যেই জঙ্গিপুর বিধানসভা কেন্দ্র থেকে নিজের মনোনয়নপত্র দাখিল করে ফের তড়িঘড়ি কলকাতার উদ্দেশ্যে চিকিৎসার জন্য ফিরে যাবেন মন্ত্রী জাকির হোসেন।